আমার চেতনার রঙে রাঙানো এই খেলা ঘরে:

~0~0~! আপনাকে স্বাগতম !~0~0~

***************************************************



Tuesday, 4 August 2009

অসমিয়া ভাষার এক বিশেষ প্রেক্ষাপটঃ অসমিয়া 'স' (X) ধ্বনিটি রক্ষা করবার জন্যে একটি আবেদন

অসমিয়া ভাষার এক বিশেষ প্রেক্ষাপটঃ
অসমিয়া 'স' (X) ধ্বনিটি রক্ষা করবার জন্যে
একটি আবেদন 


 মূল ইংরেজিঃ রাজেন বরুয়া
বাংলা অনুবাদঃ সুশান্ত কর
[ অনুবাদকের মন্তব্যঃ       

 আশীর্বাদম ন গৃহ্নিয়াত পূর্ব দেশ নিবাসিনাম ।
শতায়ুর' ইতি বক্তব্যে, 'হতায়ুর' ইতি ভাষিনাম ।।
এই শাস্ত্র বাক্যটির উল্লেখ করেছেন সুনীতি চট্টপাধ্যায় তাঁর বিখ্যাত বই ODBL-এ । আমরা পূর্বদেশবাসীদের থেকে আশীর্বাদ নিতে মানা করা হচ্ছে। কেন না আমরা 'শতায়ু' হবার আশীর্বাদ দিতে গিয়ে 'হতায়ু' হবার শাপ দিয়ে বসি। আমরা মানে অসমিয়ারা আর পূব বাংলার লোক বিশেষ করে সিলেটিরা আর কাছাড়িরা । এই শাস্ত্রবাক্য প্রমাণ করে আমরা বহু আগে থেকেই এই 'হ' উচ্চারণ করি । কেন ? ---এই প্রশ্নের উত্তরই খুব কম লোক সন্ধান করেছেন । সুনীতি চট্টপাধ্যায়ও তাঁর গ্রন্থে খুব নিশ্চিত হয়ে কিছু উত্তর দেন নি। লিখেছেন , “. . . The presence of a large Tibeto-Burman element in the population of Assam and East and North Bengal may have something to do with this....” (p79;Second Rupa Edition,1993) । সুনীতি চট্টপাধ্যায়ের দৌলতেই আমরা আমাদের জননি ভাষা মাগধি প্রাকৃতের কথা শুনেছি । কিন্তু তিনিই যে হিঊয়েন সাঙের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছেন, “ … it is curious to find that, according to him, the language of the Kāmā-rūpa people 'deferred a little' from that of Mid-India.” (p78;Second Rupa Edition,1993) এই তথ্যে আমরা কেউই এখনো বিশেষ জোর দিইনি । অনেক অসমিয়া ভাষাতাত্বিক তাই প্রাকৃতের এক কামরূপী শাখার কথাও বলে থাকেন । আমরা সেদিকে এখনই এগুব না। আমি অনেকদিন ধরেই পূব বাংলার তথা সিলেটি বিভাষাতে শিষ ধ্বনিগুলোর (শ,স এবং ষ ) বদলে ব্যবহৃত 'হ'-এর উৎস সন্ধান করছিলাম । আমার পাঠ যদিও সীমাবদ্ধ তবু প্রধান কোনো গ্রন্থে এখন অব্দি সদুত্তর পাইনি। সুকুমার সেনেও না। সম্প্রতি প্রকাশিত জগন্নাথ চক্রবর্তীর 'বরাক উপত্যকার আঞ্চলিক বাংলা ভাষার অভিধান ও ভাষাতত্ব' বইটিতেও লেখক এদিকটাতে চোখ দিয়েছেন বলে মনে হলো না। তিনিও হকারী-ভবন, অন্ত্যধ্বনি লোপের মতো কিছু ধ্বনিতাত্বিক পরিবর্তনের মধ্যি দিয়ে ব্যখ্যা দিয়েছেন । কিন্তু আমার দীর্ঘদিন ধরে মনে হচ্ছিল এই 'হ' ধ্বনি এবং এমনতর আর কিছু ভাষিক উপাদান ইংগিত করে মাগধি প্রাকৃতের বাইরেও অসমিয়া ও আমাদের পূব বাংলার ভাষাগুলো বিশেষ করে সিলেটি ও কাছাড়ি বিভাষার এক সাধারণ উৎস ভাষা থাকতে পারে। হিউয়েন সাঙের মন্তব্যেও তার সমর্থন আছে।
আর এখন বর্তমান প্রবন্ধে শ্রী রাজেন বরুয়া একটি উত্তর দেবার চেষ্টা করেছেন । তিনি যদিও মূলত অসমিয়া পাঠকের কথা মনে রেখে এই প্রবন্ধ লিখেছেন, কিন্তু এতে সিলেটি বিভাষা, আমাদের 'হ' উচ্চারণ ও তার উৎসের কথাটিও আছে । তাই এর বাংলা অনুবাদ। শ্রী বরুয়ার অভিমত মেনে নিতে হবে এমন কোনো কথা নেই। তবে মেনে নিতে হলে প্রমাণিত হবে অসমিয়ার সঙ্গে আমাদের পূব বাংলার ভাষাগুলোও ভারতীয় আর্যভাষা পরিবারের অত্যন্ত প্রাচীনতম সদস্য। সে প্রাচীনতার সময় কুমার ভাষ্কর বর্মার কামরূপের সময় থেকেও দুই সহস্রাব্দ পিছিয়ে নরকাসুরের সময় বা তারো আগে গিয়ে পৌঁছায় । তাই, এই প্রবন্ধ যদি অসমের বাংলা ভাষা নিয়ে যারা কাজ করেন তাদের চিন্তাকে উস্কে দিতে পারে তবেই আমার এই শ্রম সার্থক বলে মনে করব। শ্রী বরুয়া ইংরেজিতে লিখবার বেলা এই অনন্য ধ্বনিটির জন্যে /x/ বর্ণ ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন। সিলেটিতে বর্ণটি /h/ । সিলেটিতে আমরা সাধারণত নাটকের সংলাপ বা কিছু লোকগীতির বাইরে লিখিনা। লিখলে বোধহয় আমাদেরো /x/ ব্যবহার করতে হোত । কেননা সুনীতি চট্টপাধ্যায় তাঁর গ্রন্থের শুরুতে যে আন্তর্জাতিক ধ্বনি প্রতিলিপির উদাহরণ দিয়েছেন তাতে /x/ সম্পর্কে লিখেছেনঃ “velar spirant, unvoiced=German ch in ach, Persian خ : found in dialectical East Bengali.. .” (p.xxxiii; Second Rupa Edition,1993)
শ্রী রাজেন বরুয়ার মূল এই লেখাটি ছেপে বেরোয় তিনসুকিয়া কলেজ থেকে প্রকাশিত আমারই সম্পাদিত সাময়িকী 'প্রজ্ঞানে'র জুন,০৯ সংখ্যাতে ইংরেজিতে। শ্রী বরুয়া দেশে বিদেশের বিভিন্ন কাগজে ( বৈদ্যুতিন মাধ্যম সহ) অসমিয়া ইংরেজি সাহিত্য, সমাজ, সংস্কৃতি ও দর্শন বিষয়ে নিয়মিত লিখে থাকেন। পেশায় তিনি বাস্তুকার তথা ইঞ্জিনিয়ার, থাকেন আমেরিকার টেক্সাস প্রদেশের হিউস্টনে। সেখানে থেকেও তিনি মুহূর্তের জন্যেও ভুলেন না তাঁর মাতৃভূমি অসম তথা পূর্বোত্তরকে । পরিচালনা করেন Friends of Assam and Seven Sister            ( FASS) নামে এক স্বয়ংসেবী সংগঠন । সম্প্রতি মহাকাশচারী মাইক ফিঙ্কের ( Mike Finke ) সঙ্গে পূর্বোত্তরের শিলং, গুয়াহাটি, ইম্ফল ও ডিব্রুগড় ইত্যাদি শহরের বিভিন্ন বিদ্যানিকেতনের ছাত্র-ছাত্রীদের বার্তালাপের সু্যোগ করে দিয়ে সংগঠনটি সংবাদ শিরোনামে এসছিল। তাঁর কাজের আরো বিবরণ জানতে গেলে যে কেউ www.friendsofassam.org এই ওয়েবসাইটটি দেখতে পারেন। ]
*******
এই বিশাল ভারতীয় উপমহাদেশে অসমিয়া ভাষার এক অনন্য নিজস্ব পরিচিতি রয়েছে যার চেহারা চরিত্র বাকি ভারতের থেকে একেবারেই আলাদা। অসমিয়া সংস্কৃতির নানা দিক থেকে এর প্রমাণ দেয়া যায় । বিশেষ করে , এটা দেখা যায় অসমিয়া ভাষাতে যেখানে এক নিজস্ব বৈশিষ্ট সহ কণ্ঠ্য 'স' (X) ধ্বনি রয়েছে। এই ধ্বনিটি , যেটি কিনা ইংরেজি /s/ এবং /h/ মাঝামাঝি উচ্চারিত হয় সাধারণত আর কোনো আধুনিক ভারতীয় ভাষাতে দেখা যায় না। অসমিয়া ভাষা আমাদের শুধু আলাদা পরিচিতি দেয়নি ,আমাদের মতো এক অস্ট্রো-তিব্বতি-বর্মি-মোঙ্গলীয়-আর্য মিশ্রিত জাতিকে এক দারুণ ঐক্যও দিয়েছে।
নব্য ভারতীয় আর্য ভাষাগুলোর (NIA) সবচাইতে পূর্ব-প্রান্তীয় সদস্য হচ্ছে অসমিয়া । মূলতঃ অসমের ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার লোকেরা এই ভাষাতে কথা বলে । একই সঙ্গে ভাষাটি ইন্দো-ইউরোপীয় (IE) ভাষাগুলোরও একেবারেই পূর্ব-প্রান্তীয় সদস্য । এই ইন্দো-ইউরোপীয় (IE) ভাষাগোষ্ঠী হচ্ছে পৃথিবীর সবচে' বড় ভাষাগোষ্ঠী। পৃথিবীর অর্ধেকের বেশি মানুষ এই ভাষাতে কথা বলে। সমস্ত আধুনিক ইউরোপীয় ভাষাগুলোর সঙ্গে আধুনিক ইরান, পাকিস্তান ও ভারতের ভাষাগুলো এই গোষ্ঠীর মধ্যে পড়ে । আর্যদের প্রব্রজনের একেবারে দূরবর্তী পূবপ্রান্তীয় উপনিবেশ হবার জন্যে অসমিয়া একেবারে পরিধির বা প্রান্তীয়ভাষা ।
অসমিয়া যে খুব প্রাচীন ভাষা এই তথ্য অনেক অসমিয়াও জানেন না । নব্য ভারতীয় আর্য ভাষাগুলোর মধ্যে এমন কিছু বৈশিষ্ট অসমিয়াতে রয়েছে যা আর অন্য কোনো ভাষাতে নেই। অসমিয়া ভাষার ধ্বনিরূপ মূলত চারটি কারণে অন্য ভারতীয় আর্য ভাষাগুলোর         ( সংস্কৃত, হিন্দি, বাংলা, পাঞ্জাবি ইত্যাদি ) থেকে অনেকটাই আলাদা। কারণগুলো হলোঃ ১) প্রাচীন কাল থেকে ভারতের অন্য আর্য ভাষাগুলোর থেকে অসমিয়া বিচ্ছিন্ন হয়ে বিকশিত হয়েছে। ২) পূর্বোত্তরের তিব্বতি-বর্মি ও অন্যান্য ভাষাগুলো দিয়ে অসমিয়া ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হয়েছে, যা কিনা মূল ভারতের অন্য আর্য ভাষাগুলোর বেলা হয় নি। ৩) মূল ভারতের অন্য ভাষাগুলো দ্রাবিড়ীয় ভাষা দিয়ে ব্যাপক প্রভাবিত হয়েছে, যা কিনা অসমিয়ার বেলা হয় নি। ৪) অসমে আর্যদের যে শাখাটির প্রব্রজন ঘটেছিল তারা ছিল প্রাগৈতিহাসিক-প্রাকবৈদিক কালের। যার ফলে দেখা যায় যে অসমিয়াতে ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষার মূল কতকগুলো বৈশিষ্ট এখনো থেকে গেছে, যেগুলো ভারতের অন্য আর্য ভাষাতে মেলে না অথবা তারা হারিয়ে ফেলেছে।
এক অন্যতম পার্থক্য হলো অসমিয়াতে মূর্ধণ্য (স্বর বা) ধ্বনি নেই , সংস্কৃত ও অন্য নব্য ভারতীয় আর্য ভাষাতে আছে। মূল প্রাক বৈদিক আর্য ভাষাতে এই মূর্ধণ্য ধ্বনিগুলো ছিল না। বলা হয়ে থাকে যে সংস্কৃতে এই ধ্বনিগুলো দ্রাবিড় ভাষাসমূহের প্রভাবে এসছে । এ ছাড়াও অসমিয়াতে অনন্য 'স' ধ্বনিটি রয়েছে যেটি সংস্কৃত ও অন্য নব্য ভারতীয় আর্য ভাষাতে নেই ।এই অসমিয়া 'স' ধ্বনিটির চরিত্রটি কী ? কখন আর কোত্থেকে অসমিয়া এই ধ্বনিটি পেয়েছে ? চলুন, আমরা এ নিয়ে বিশেষজ্ঞরা কি বলেন দেখে নিই ।
ধ্বনিতত্বের দিক থেকে অসমিয়া ''স' (X)ধ্বনিটি জার্মান Bach এবং স্কটিশ Loch শব্দের /ch/ ধ্বনির মতো উচ্চারিত হয়।এভাবে সংস্কৃত ও অন্য সমস্ত নব্য ভারতীয় আর্য ভাষার বিপরীতে অসমিয়াতে সব ক'টি ভারতীয় আর্যের শিষ ধ্বনি-- s (স), ş (ষ) এবং ś (শ ) উচ্চারিত হয় 'স' (X)-এর মতো, /so/ এর মতো নয় । অসমিয়ার এটি অনন্য বৈশিষ্ট ।
বাপ্টিষ্ট মিশনারিরা যখন উনিশ শতকের শুরুর দিকে প্রথম অসমিয়ার সংস্পর্শে এলেন সংগত কারণেই অসমিয়া 'স' (X) ধ্বনিটি তাদের নজরে এলো এবং সঠিকভাবেই তাঁরা মত দিলেন যে অসমিয়াতে গ্রীকের মতোই অনন্য 'স' (X) ধ্বনিটি রয়েছে । এখানে এটি উল্লেখ করা যেতে পারে যে পূর্বোত্তরের কোনো অনার্য ভাষাতেই ( বডো, তাই, মৈতেই, কুকি এবং তিব্বত-বর্মি বা নাগা -কুকি ভাষাগুলোতে ) এই অসমিয়া 'স' (X) ধ্বনিটির মতো কোনো ধ্বনি নেই । বস্তুতঃ পূর্বোত্তরের বহু নৃগোষ্ঠিরই শুদ্ধ করে এই 'স' (X) ধ্বনি উচ্চারণে অসুবিধে রয়েছে । এই পরিপ্রেক্ষিতে এ কথারও উল্লেখ করা উচিত হবে যে বাংলার সিলেটি উপভাষাতে এই X ধ্বনিটি রয়েছে, সেখানে এটি উচ্চারিত হয় /h/ এর মতো । বেনুধর রাজখোয়া যখন সিলেট জেলা মেজিষ্ট্রেট ছিলেন, তিনি তখন ১৯১৩তে একটি বই লেখেন যার নাম ছিলঃ Notes on the Sylheti Dialect . তিনি দেখিয়েছিলেন যে সিলেটি উপভাষাটি আদর্শ বাংলার থেকে অসমিয়ার অনেক কাছের ভাষা । তিনি বিশেষ করে উল্লেখ করেছিলেন যে সিলেটিরা শিষ ধ্বনি স (s) কে অসমিয়াদের মতো 'স' (X) উচ্চারণ করে । সে যাই হোক, এরা অল্প /h/-এর দিকে হেলে পড়ে, আদর্শ বাংলার -'সে', 'ঐ',' সেইটি'---র বদলে তারা বলে, 'হি' /he/ ( অস. সি /xi/), হউ /hou/ (অস. সৌ /xou/) , হেইটো ( অস. সেইটো /xeito/)☻ ইত্যাদি । বেনুধর রাজখোয়া অসমিয়া লিপিতে লেখা এক পুরোনো সিলেটি 'পদ্মাপুরাণে'র পাণ্ডুলিপিও দেখেছিলেন ।
ভারতের অগ্রণী ভাষাতাত্বিক সুনীতি কুমার চট্টপাধ্যায় এই 'স' (X) সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন এরকম, “ The Change of initial, intervocal and final (sibilants) to the gluteral spirant X (স) in Assamese is something remarkable and is paralleled by what we see in Singhalese and Kashmiri. This is also noticeable in Iranian, Hellenic and Celtic.” বহু ভাষাতেই মূল ইন্দো-ইউরোপীয় স' (X) ধ্বনিটি হারিয়ে গিয়ে স, খ বা হ-তে রূপান্তরিত হয়ে গেছে । মহান অসমিয়া পণ্ডিত কালিরাম মেধির মতে, “ The Assamese pronunciation of the sibilants is peculiar in Assamese, and evidently a relic of pre-Vedic Aryan pronunciation.” আরেকজন অসমিয়া বিশেষজ্ঞ ডিম্বেশ্বর নেওগও সহমত পোষণ করে লেখেন, “ Next to the above peculiarities is the Asamiya X (স) pronunciation of the sibilants which also must have been brought by Early Aryans called the Mediterranean.” ধ্রুপদী সংস্কৃত ভাষা দেখা দেবার আগে প্রাক-বৈদিক আর্যভাষাতে এই 'স' (X) ধ্বনিটি ছিল । ড০ সুনীতি চট্টপাধ্যায় লিখেছেন, “It seems that in certain forms of OIA( Old-Indo-Aryan) languages the X (স) sound was the actually one employed for S as can be inferred from a medieval pronunciation of S as /kh/ being the nearest approximation to the traditional X(স).” ডিম্বেশ্বর নেওগ আরো লিখেছেন , “ When the Nordic of Vedic Aryan immigration into India took place in the second millennium B.C., the X (স) sound as in Asamiya was prominent. Chatterjee thinks that 'tatax kim' was the actual pronunciation at the time of Rig Veda. It came to be pronounced as 'tatah kim' in later times owing to non-Aryan influence predominating over the Aryan. But it remained almost intact in the Dardic or Pisaci speech which like the Asamiya is a language of the outer band.”
নেওগ দেখিয়েছেন যে এই 'স' (X) ধ্বনিটি আঠারো শতক অব্দি বাংলাতেও ছিল । ১৭৪৩এ লিসবনে প্রকাশিত এক বাংলা-পর্তুগিজ অভিধানের শিরোনামের বানানে 'স' (X) ধ্বনির জন্যে 'x' বর্ণটির উল্লেখ করে তিনি মন্তব্য করেছেন, “ … the Asamiya X(স) pronunciation lingered in Bengal until at least the middle of eighteenth century from the earliest times even through the 'Charyas' and 'Krishna Kirtan' etc. Perhaps even today the state of Bengal has two distinct cross currents of their speech—the lower and deeper being that of old Asomiya or Kamrupi , and the upper and the surface current being that of modern or standard Bengali So called. As for the X (স) pronunciation, it has mostly changed to H as in East Bengal”
এই ধ্বনিটি অসমে এলো কী করে ? এক তত্ব অনুসারে , একে প্রথম যুগের প্রব্রজিত ভূমধ্যসাগরপার থেকে আসা আলপাইন আর্যরা নিয়ে এসছিল। “During the third millennium B.C. The Alpine immigration poured into India, one branch of them moving towards the western coast of India through the Indus Valley and the other branch pushing towards Eastern India.” তারা নিশ্চয়ই মূল ভারতের সমতল এড়িয়ে হিমালয়ের নিচে নিচে এদিকটাতে এসছিল। অসমিয়া ভাষার সঙ্গে হিমালয় এবং তরাই অঞ্চলের ভাষাগুলোর কিছু চিত্তাকর্ষক সম্পর্ক রয়েছে। এটিও সম্ভব যে এদের কেঊ কেউ সে সময়কার বহু ব্যবহৃত উত্তরের বাণিজ্যপথ ধরে তিব্বত ভুটান হয়ে অসমে এসে ঢুকেছে। রাজস্থানের মতো পশ্চিমের কিছু কিছু প্রদেশের লোকও এই 'স' (X)টিকে অক্ষত রেখেছে।
এভাবে আমরা দেখছি যে এই 'স' (X) ধ্বনিটি অসমে উদ্ভব হওয়া কোনো ধ্বনি নয়, না এই ধ্বনিটি অসমের কোনো অনার্য ভাষা থেকে উত্তরাধীকার সূত্রে এসছে। বরং এটি আমাদের প্রাকবৈদিক ইন্দো ইউরোপীয় ঐতিহ্যকে চিহ্নিত করে ।
এরজন্যেই আমাদের অসমিয়া ভাষা সেই মুষ্ঠিমেয় ভাষাগুলোর মধ্যে এক অনন্য ভাষা যে কিনা এখনো 'স' (X) ধ্বনিটিকে অক্ষত রেখেছে। এটি স্পষ্ট যে অসমে এই ধ্বনিটি নরকাসুর ( Narakaxura) বা তাঁর আগের থেকেও ছিল, যারা প্রাকবৈদিক অসুর (Axura. Sans: Asura) আর্য লোক ছিলেন । আর্য গোষ্ঠির এই শাখাটি পারস্য অব্দি এসছিল, ওখানে তারা নিরাকার সর্বশক্তিমান ঈশ্বর অহুর মেজদার (Ahura Mejda) পূজা প্রচলন করে । উল্লেখ করবার পক্ষে এটি খুব আকর্ষণীয় তথ্য যে এমন কি আজো অসমিয়াদের সঙ্গে 'জেন্দ আবেস্তা'তে উল্লেখিত প্রাচীন পার্শি সংস্কৃতির সম্পর্ক খোঁজে পাওয়া যায় । পার্শিদের ভাষার সঙ্গেও অসমিয়া ভাষার বেশ কিছু সম্পর্ক সূত্র মেলে--এই 'স' (X) ধ্বনিটি সহ । সেখানে ধ্বনিটি সিলেটির মতো 'হ' /h/ উচ্চারিত হয় ।
পণ্ডিতেরা এখন সঠিকভাবেই এই অনন্য অসমিয়া ধ্বনিটিকে 'কণ্ঠ্য -ঊষ্ম' (velar fricative) ধ্বনি বলে চিহ্নিত করেছেন। ড০ বাণিকান্ত কাকতি বলেন যে অসমিয়াতে এটি এক ' অঘোষ কণ্ঠ্য উষ্ম' ধ্বনি । ড০ গোলক চন্দ্র গোস্বামী একে 'কণ্ঠ্য অঘোষ মহাপ্রাণ' ( velar voiceless aspirant ) বলে ব্যাখ্যা করেছেন । আন্তর্জাতিক ধ্বনিমূলক সংস্থা (IPA) পৃথিবীর সমস্ত ভাষার সমস্ত ধ্বনিকে চিহ্নিত করেছে এবং প্রতিটির জন্যে কিছু অনন্য চিহ্ন নির্দিষ্ট করে দিয়েছে। অসমিয়া এবং অন্য যে সব ভাষাতে 'কণ্ঠ্য উষ্ম' ধ্বনি পাওয়া যায় তার জন্যে আন্তর্জাতিক ধ্বনিমূলক বর্ণমালাতে নির্দিষ্ট করে দেয়া চিহ্ন হলো রোমান বর্ণ X . (IPA তালিকা দেখুন) ।

কিছু কিছু ইন্দো ইউরোপীয় ভাষা আজ অব্দি এই ধ্বনিটিকে অক্ষত রেখেছে, যদিও উচ্চারণ প্রতিটি ভাষতেই কিছু পৃথক ।ইউরোপীয় ভাষাগুলোতে ধ্বনিটিকে হয় x নতুবা ch দিয়ে বানান করা হয় । গ্রীক ভাষাতে x দিয়ে লেখা হয়। যেমন Xarish ( অর্থঃ অনুগ্রহ) । রুশিতেও Xrushchev বা Chexov শব্দে যেমন ধ্বনিটির বানান x দিয়েই লেখা হয় । জার্মানে এর বানান লেখা হয় ch দিয়ে --Dach ( অর্থঃ ছাদ) বা Bach ( অর্থঃ ছোট নদী ; Eng: Brook) শব্দে যেমন । স্কটিশ ভাষাতেও এই ধ্বনিটি আছে এবং সেখানে ঐ জার্মানের মতোই ch দিয়ে বানান লেখা হয়---Loch ( অর্থঃ ছিদ্র) শব্দে যেমন ।
যাইহোক, ভাষাতাত্বিকেরা আমাদের বলেন যে এই 'স' (X) টি আমাদের সুপরিচিত ভাষা ইংরেজিতেও ছিল। এই ধ্বনিটির উপর মন্তব্য করতে গিয়ে রবার্ট ক্লেইবোর্ন বলেছেন, “Just as English syntax has changed over the centuries, so have English phonetics and English vocabularies. Thus the sound we write as ch ( as in 'church') appeared in English only about Fifteen hundred years back, while the guttural sound /kh/ disappeared about five hundred years ago ( except in Scotland where it is spelled ch as in : It's a braw, bricht, moonlight nicht.” (Our Marvellous Native Tongue p17)] . অন্য ভাষাতাত্বিকেরাও ক্লেইবোর্নের সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন। “ There were other changes as well, most notably the loss of the Old English sound /x/, which in technical terms, was a voiceless labiodental fricative—or to you and me the throught-clearing sound of /ch/ in Scottish 'Loch' or German 'Ach'. ('The Mother Tongue: English & How it Got That Way'---Bill Bryson; p93).
এভাবে দেখা যাচ্ছে , সেই প্রাচীন কাল থেকে অসমিয়া ভাষা তার আর্য মূল রূপকে রক্ষা করে এসছে। এটা সে করেছে তিব্বতি-বর্মি গোষ্ঠীর অন্য ভাষাগুলোর সঙ্গে মহান সমন্বয়ের প্রক্রিয়ার পরেও । যাইহোক, ১৮২৬এ ব্রিটিশ আসার পর থেকে গেলো দুশো বছরে আমরা এই অনন্য ধ্বনিটিকে দ্রুত হারাতে বসেছি। নানা কারণে এটি ঘটছে । একদিকে ইংরেজির মধ্যদিয়ে পশ্চিমা প্রভাব আর অন্যদিকে আধুনিক কালে অসমিয়ার অতি-সংস্কৃতায়নের ফলে বহু শিক্ষিত অসমিয়াও এই 'স' (X) ধ্বনিটির প্রকৃত তাৎপর্য নিয়ে বিভ্রান্ত । অসমিয়ারা তাই যখন ইংরেজিতে অসমিয়া শব্দ লেখেন তখন কোন আদর্শ রোমান বর্ণ এই ধ্বনিটির জন্যে ব্যবহার করেবেন তা স্থির করে উঠতে পারেন নি । এই ব্যর্থতা কিছু সাংঘাতিক সমস্যার সৃষ্টি করেছে । রোমান বর্ণ দিয়ে যথার্থ অসমিয়া ধ্বনি বোঝাতে অসমিয়াদের সংকটে পড়তে হয় । ফলস্বরূপে, আজকাল সমস্ত অসমিয়া নামপদ লেখা আর উচ্চারণ করা হয় ইংরেজিকৃত রূপে , যেভাবে ব্রিটিশেরা এগুলো আমাদের দিয়ে গেছে । আমরা তাই অভ্যাসবশে লিখে চলিঃ Sibsagar, Hukanguri,Simaliguri এবং Hapekhati, এমন আরো হাজারো অন্য অসমিয়া শব্দের কথা নাই বা বললাম । শুধু তাই নয়, এই ইংরেজি অভ্যেসের বশে আরেকটু এগিয়ে গিয়ে আমরা আজকাল অসমিয়া শব্দের এমন বানানও লিখিঃ Asom, Parishad, Satra ইত্যদি । এটি লেখাই বাহুল্য যে এর কোনোটাই প্রকৃত অসমিয়া উচ্চারণকে ব্যক্ত করে না। Das, Sharma, Saikia, Sibsagar, Satyen-এর মতো শব্দে আমরা ইতিমধ্যে ধ্বনিটিকে হারিয়েছি। যদি না পরিস্থিতিটি নিয়ে আমরা আন্তরিকতার সঙ্গে সচেতন হই, তবে আমার ভয় হয় আগামী কয়েক দশকের মধ্যেই আমরা সম্ভবতঃ নিজেদের সগৌরবে Oxomiyaর বদলে Osomiya বলে অভিহিত করব।
এই অনন্য ধ্বনিটিকে রক্ষা করতে অসমিয়াদের কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত। প্রথমতঃ আন্তর্জাতিক ধ্বনিতাত্বিক বর্ণমালার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ইংরেজি লিখবার বেলা ধ্বনিটির জন্যে বানানে X ব্যবহার করা উচিত। যে শব্দেই এই উচ্চারণটি আছে সেখানেই এই বর্ণটি দিয়ে বানান লেখা শুরু করা উচিত অসমিয়াদের । ইংরেজি বর্ণমালাতে যদি অসমিয়া 'অসম' শব্দটি লিখতে হয় তবে তার বানান হবে       OXOM ।অনেকেই একে ASOM –এভাবে লেখেন। এটি লেখাই বাহুল্য যে ASOM বানানে মোটেও শব্দটির অসমিয়া উচ্চারণ ধরা পড়ে না , এই বানান শুধু অসমিয়ার নিজের ভাষাকে হত্যা করে --এটি নিশ্চিত । Sankaradava, Satriya ইত্যাদি অন্য আরো বহু শব্দ সম্মন্ধেও কথাটা একই , এগুলো লেখা উচিত এভাবেঃ Xongkordeb, Xotriya ইত্যাদি । আশা করছি, এর পর থেকে শিক্ষিত অসমিয়ারা 'স' ধ্বনিটি রক্ষা করাবার জন্যে /x/ বর্ণটি ব্যবহার করবেন এবং এরকম বহু শব্দে 'স' বর্ণটি সঠিকভাবে উচ্চারণ করবেন ।
গ্রন্থসূত্রঃ
১ । Assamese Grammar And Origin of the Assamese Language---Kaliram Medhi.
২। The background of Assamese Culture---R.M.Nath
৩। অসমিয়া ভাষার মৌলিক বিচার –দেবানন্দ ভরালি ।
৪। Assamese—Its Formation and Development—Dr Banikanta Kakaty.
৫। Structure of Assamese---Dr Golok Ch Goswami.
৬ । Origin And Development of Bengali Language---S.K.Chatterjee.
৭। The Origin and Growth of Asomiya Language—Dimbeswar Neog.
৯। A History of India---A.F.Rudolf Hoernle & Herbert A. Stark.
১০। অসমিয়া বর্ণ প্রকাশ – ড ০ গোলকচন্দ্র গোস্বামী ।
১১। The Mother Tongue: English & How it Got That Way---Biull Bryson .
১২। Our Marvellous Native Tongue—Mr Robert Claiborne.
অনুবাদকের টীকাঃ
 প্রজ্ঞান, জুন ০৯; পৃঃ ৪১; সাময়িকীটির ওয়েব সংস্করণও পাঠক দেখতে পারেন এখানেঃ http://sites.google.com/site/pragyan06now
☻ শব্দগুলোতে শিষ ধ্বনির রূপ শ্রী রাজখোয়া ঠিকই ধরতে পারলে শব্দগুলো ঠিক এই রূপে সিলেটিতে নেই আছেঃ সে< হে, ঐ< হউ এবং সেইটি < হকটা বা হটা বা হিটা ।
 আন্তর্জাতিক ধ্বনিতাত্বিক সংস্থা (International Phonetic Association) পৃথিবীর সমস্ত ভাষার সমস্ত ধ্বনিকে চিহ্নিত করেছে এবং প্রতিটির জন্যে কিছু অনন্য চিহ্ন নির্দিষ্ট করে দিয়েছে। এগুলোকে আন্তর্জাতিক ধ্বনিমূলক বর্ণমালা ( International Phonetic Alphabet ) বলে। সংক্ষেপে দুটোই IPA .
 শ্রী বরুয়া ইংরেজিতে অসমিয়া শব্দ 'অসম' লিখবার বেলা 'OXOM' লিখবার পরামর্শ দিলেও ইংরেজি 'ASSAM' নাম বদলের তীব্র বিরোধী । তাঁর মতে India ও Bharat-এর মতো 'OXOM' ও 'ASSAM' দুটোই ইতিহাস ও ঐতিহ্যসূত্রে লাভ করা অসমের দুটো নাম । চন্দ্রপ্রসাদ সইকিয়া এবং তেমন কারো কারো মতো তিনি মোটেও বিশ্বাস করেন না যে 'ASSAM' শব্দটি ইংরেজি থেকে এসছে। এ নিয়ে সম্প্রতি তিনি অসমিয়া সাময়িকী 'প্রান্তিকে' লিখেওছেন। ('আচাম, অসম আরু আহোম নামর উৎপত্তি'--রাজেন বরুয়া; 'প্রান্তিক ,১ জুলাই; পৃঃ১৭ ) আমরা সম্ভবতঃ এর পরে কখনো সে লেখাটিও অনুবাদ করব । যাদের প্রতিবাদে অসম সরকার নাম বদলের প্রয়াস থেকে সরে দাঁড়ায় তাঁদের মধ্যে শ্রী রাজেন বরুয়া অন্যতম । আপাততঃ তিনি বর্তমান অনুবাদককে এ নিয়ে ই-মেলে যে কথাগুলো লিখেছেন আমরা এখানে তা হুবহু ইংরেজিতে তুলে দিলামঃ “Late Chandra Prasad Saikia, the Assamese writer, wrote in one of his Editorials, in the Assamese monthly magazine, “The Gorioxi”, prescribing to change the spelling of the name ASSAM to ASOM. In his writing, Sri Saikia commented that ASSAM is an anglicized pronunciation coined by the British and therefore we should change it to ASOM which he thought would represent the proper local pronunciation which is OXOM. However, his writing has two great fallacies. First the pronunciation ASSAM is not an anglicized one, but it is rather a local Assamese pronunciation which was in vogue since pre colonial days. Second, his contention that spelling ASOM would represent proper local pronunciation OXOM is completely erroneous. This Saikia himself admitted in the same writing when he commented that although people may pronounce the word ASOM not as OXOM but rather as OSOM, at least they would not pronounce it as ASSAM.  It is obvious that if the Assamese follow his suggestion, Assamese will eventually loose both the pronunciations: ASSAM as well as OXOM. This type of writings by educated Assamese like Chandra  Prasad Saikia, who was an editor of a prestigious Assamese magazine, simply shows the depth and extent of our ignorance as well as of the problem that we have inherited from our colonial past.”
*******************
Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...

Google+ Badge

^ Back to Top--'উপরে ফিরে আসুন'