আমার চেতনার রঙে রাঙানো এই খেলা ঘরে:

~0~0~! আপনাকে স্বাগতম !~0~0~

*******************************************************************************************************

Sunday, 25 October 2009

স্বামী গিসে মোক বন্ধক থুয়্যা ধর্মের পথ আর চিনিলেন না

সেদিন নর্থ ইস্ট ইয়াহু গ্রুপে হিতেশ কলিতা  CNN এর থেকে একটা সংবাদ পাঠায়ঃ

BUNDELKHAND, India (CNN) -- The cattle slowly drag the old-fashioned plow as a bone-thin farmer walks behind, encouraging them to move faster with a series of yelps.Drought, debt and desperation have pushed some farmers in rural India to sell their wives.Drought, debt and desperation have pushed some farmers in rural India to sell their wives.It is a scene from times of old, but still the way many farmers operate in rural India, where the harvest often determines feast or famine.The region is called Bundelkhand, spanning the two northern Indian states of Uttar Pradesh and Madhya Pradesh. It is here that drought, debt and desperation have pushed people to extremes.To survive the bad years, some farmers say they turn to the "Paisawalla" -- Hindi for the rich man who lends money. Farmers say the loans from these unofficial lenders usually come with very high interest.
    When the interest mounts up, lenders demand payment. Some farmers work as bonded laborers for a lifetime to pay off their debts. Others here say because of years of little rain and bad harvests they are forced to give money lenders whatever they ask for.Sometimes that includes their wives. It happens sometimes when somebody borrows money," says a farmer's wife who did not want to be identified. She should know, considering what police say she told them. She said a rich man bought her from her husband.
    "He did buy me," she says. "That's why he told me he bought me."For 30 days she says the man forced her to live with him.When her case drew public attention, she retracted her police report and her husband took her back.Ranjana Kumari with India's Center for Social Research says the exploitation of women is common in the region. And, she says, there is little support for women in India who have the courage to file a case with authorities."Nobody's going to support or help them," Kumari says. "If a family decides not to help them, the system is already not so sensitized towards them, whether it is police, judiciary, whether the legal system. So the women themselves tend to withdraw these cases." In another village, another story involving another farmer, and money lender.
    "I sold my water engine and land and gave back his 30,000 rupees," the farmer says, describing his $600 loan payment.
The farmer, whom CNN is not identifying to protect his wife and children, says the lender then asked him to send his wife to help with chores while the lender's wife was sick. The farmer says he complied, and his children -- including his daughter -- went too.But the mother never returned. The farmer says he believes she was stolen from him. The daughter says the lender sold her mother to another man.State authorities say they have investigated the matter and found that the mother denies she was sold and has simply gone to live with a lover.
    The daughter says that's not true, and claims that she and her father were told to keep quiet by some of the village leaders. During CNN's interview with the family, officials with the state magistrate's office barged into the farmer's home and began videotaping.An Indian government report completed in 1998 says the region is prone to what it calls "atrocities," including the buying and selling of women.However no one can say just how common these kinds of incidents are.Social workers say this isn't just about poverty, but also an indication of the low social status of women in poverty-stricken areas such as Bundelkhand.
    "Those women are very vulnerable to all kinds of physical and sexual exploitation." Kumari says. "Also there is much higher level of violence against women in that area."The government and charities have been trying to help but the status of women and girls, often illiterate and seen as a financial burden, remains low. Nevertheless, attitudes are slowly beginning to change, Kumari says.
    A farmer's wife in yet another village in the region said she was sold by her own parents 14 years ago."My mother and father got 10,000 rupees (about $200)," she says. "That's why they sold me."She says she was 12 years old at the time her husband bought her. She never considered going to authorities because she says she had no where else to go. She accepted it as her destiny.But now she has a daughter of her own and her perspective has changed.Would she allow her daughter to be sold?
 She looked up and shook her head firmly.
"No," she said, "I would not want this for her. Let her marry however she wants."

জবাবে আমি লিখি ঃ

It's age-old practice in Indian Society. Women are most suffered community in a situation like drought , Tsunami , Food, War and Riot. In Assam also hundreds of father and Husband ( sometime even mothers) sell their child to the Flash Traders. This is how India treat it's 'MatriShokti'; of which a good section of it's citizen feel proud.They rather more concern about the Burqa that Muslim women wore. By the way, on selling their women Muslims do not behave differently. Here unity of both the community is unique. We can
feel proud about these type of great Indian Unity :) :)
Sushanta

সে আবার লেখেঃ

India is in 'IT super power...nuclear power....Chandrayaan 1 ....2...."300 Crore project" for building Shivaji Statue ....but what about poor people....sometime I get frustrated to think of our leaders......what are they doing for uplifting of farmers....I heard some scheme for farmers..but does that fund reach to the farmers???

আমার আবার জবাব ছিলঃ
The Leaders are not of the poor and peasantry. It's Cristal clear. Depending on them will only lead to the frustrations. In a country where staying at a Dalit's home by Rahul Gandhi became news, it's very clear that not staying there for years do not necessarily become any news. And this is the real fact.
Sushanta kar

এ ক'দিন ধরে আমি 'উত্তর বঙ্গের ভাষা' নামে একটা বই পড়ছি। তাতে অসমের করিমগঞ্জ জেলার বদরপুর কলেজের অধ্যক্ষ শিব তপন বসুর রাজবংশী মেয়েদের ভাষা নিয়ে একটা লেখাতে হঠাৎই এই প্রসঙ্গ পেয়ে আমি আবার লিখেছিঃ 

Dear
Hitesh,
Selling Wives and Girls were so acute  in Bengali and Assamese societies that the sufferings of women got expressions in folk-stories as well.   there was a Rajbongshi Folk Drama( লোক নাট্য) Maya Bondhoki ( মায়্যা বন্ধকী) where the land lord ( জোতদার) is telling to the women , whome he kept as mortgage from her husband,
Swami Gise tok bondhok thuiya Ar na paribe chutaiba
jor koriya ohe bahe tok korim beha
( স্বামী গিসে তোক বন্ধক থুইয়া আর না পারিবে ছুটাইবা
জোর করিয়া অহে বাহে তোক করিম বেহা।)
In reply the woman Kironsori (কিরনসরী) is saying :
Swami gise mok bondhok thuiya dhormer poth ar cinilen na,
pao dhoriya kohocu katha, hamak aar chuyen na.

(স্বামী গিসে মোক বন্ধক থুয়্যা ধর্মের পথ আর চিনিলেন না,
পাও ধরিয়া কহচু কাথা, হামাক আর ছুয়েন না।)

In an another folk song the girl child is saying to another lady:

Bap Mao mor duracar, byacya khailek durantor.
Oki bhabee re ( buji) aar na dekhim mui bonduar barire.

( বাপ-মাও মোর দুরাচার, ব্যাচেয়া খাইলেক দুরান্তর।
ওকি ভাবী রে ( বুজি ) আর না দেখিম মুই বন্দুয়ার বাড়িরে!"
I was reading a book 'Uttor Bonger Bhasha' where I got these references.

Sushanta Kar 
মনোজ দাস (dasmk2k@gmail.com)আজ ৩১শে অক্টোবরে আসামনেট.অর্গএ মন্তব্য করেঃ
The adverse sex ratio in Delhi, Haryana and Punjab due to selective killing
of girl foetus has lot to do with this crime. In coming years it will be
more acute.

mkd

জবাবে আমি লিখিঃ

It's a vital point Monoj! Good saying!

Sushanta 

Monday, 19 October 2009

Bengali Teacher of Ajmal's son & the status of Bengali Language of Assam


From My Articles



আজমল পুত্রের বাংলা শিক্ষক ও অসমের বাংলা ভাষা 

এ আই ডি ইউ এফের সভাপতি বদরুদ্দিন আজমল লোকসভাতে নির্বাচিত হওয়াতে তাঁর বিধান সভা কেন্দ্র দক্ষিণ শালমারা কেন্দ্রে উপনির্বাচন হচ্ছেএতে তাঁর দল বদরুদ্দিনেরই পুত্র আব্দুর রহমানকে প্রার্থী করেছেঅনেকে একে পরিবারবাদ বলছেদল বলছে, বদরুদ্দিনের পুত্র না হলে এই কেন্দ্রে কংগ্রেসের ওয়াজেদ আলিকে হারানো যাবে না  পরিবারবাদ না হলেও দলটির বিরুদ্ধে এতোদিন সাম্প্রদায়িকতার অভিযোগ উঠেছেযদিও বিজেপির মতো এদের কোনো সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে কথা বলতে দেখাত যায়ই নি, উল্টে সব্বাইকে নিয়ে চলার প্রবণতা দেখা গেছেঅবশ্যি এটা ঠিক যে এরা ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের স্বার্থের পক্ষে কথা বলে এসছেন
       অসমিয়া জাতিয়তাবাদী দলগুলো আজমলেদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকে প্রশ্রয় দেবার অভিযোগও করে থাকেকিন্তু এহ বাহ্য! তাঁরা এবং বাঙালি জাতিয়তাবাদীদের যে অংশটি 'বাঙালি' আর হিন্দু শব্দকে সমার্থক মনে করে তার বিজেপির চাইতেও এ আই ডি ইউ এফের উত্থানে বেশি আতঙ্কিত
     এবারের নির্বাচনে যেটি সবচাইতে চোখে পড়বার দৃশ্য তা হলো কংগ্রেসের প্রার্থী ওয়াজেদ আলি  আজমল পুত্রের বিরুদ্ধে বাংলা না জানার অভিযোগ এনেছেনসেই অভিযোগের জবাব দিতে ইতিমধ্যে হোজাই থেকে এক বাংলা শিক্ষককে ভালো মাইনে ও থাকা খাওয়ার সুবিধে দিয়ে মুম্বাইতে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছেআব্দুর রহমান ইংরেজি জানেন, জানেন উর্দু এবং হিন্দিওকিন্তু জানেন না অসমিয়া ও বাংলাতাই যেটুকু তিনি মুম্বাইতে শিখবেন , শিখবেনবাকি টুকু অসুবিধে দূর করবার জন্যে এই শিক্ষক নির্বাচনী প্রচারে সারাক্ষণ তাঁর সঙ্গে থাকবেন
      বাইরের পাঠকেরা এতে অবাক হবার কিছু দেখবেন নাকিন্তু অসমের সব্বাই জানেন এতে অসমের বাঙালিদের সাহিত হবার সঙ্গে সঙ্গে জাতীয়তাবাদী অসমিয়াদের চিন্তিত হবার কারণ আছে
     বদরুদ্দিন হোজাই বাসিন্দা হলেও খাস সিলেটি  ষাট ইংরেজির ভাষা দাঙ্গার পর অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থে  ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার সমস্ত মুসলমান বাঙালি বিশেষ করে ময়মনসিংহমূলীয়রা নিজেদের অসমিয়া বলে আদমসুমারিতে লিখিয়ে আসছেন বরাক উপত্যকার মুসলমানদের বাংলা ভাষা আনুগত্যও প্রশ্নাতীত নয়যদিও এদের সব্বারই মাতৃভাষা বাংলাতাঁদের ক্ষুদ্র মধ্যবিত্ত অংশটি সবসময়েই বাংলার পক্ষে থাকলেও ষাট ইংরেজিতে মইনুল হকের ভূমিকা ও আশিতে আলগাপুরের অগপ বিধায়ক সহিদুল আলমের ভূমিকা ঐ প্রশ্নগুলোকে পাকা করতে সাহায্য করেছিল আমার ব্যক্তিগত স্মৃতি আছে, দেখেছি আগে যখন বাংলাদেশের টিভি চেনেলগুলোর নাটক -ধারাবাহিকগুলোর ব্যাপক প্রচার ও জনপ্রিয়তা কাছাড়ে করিমগঞ্জে ছিল তখন শিল্পীদের নামের ভিড়ে কোনো হিন্দু নাম দেখালেই আত্মীয়রা চেঁচিয়ে বলতেন, " একটা বাঙালিও আছে বে!" বুঝুন ঠেলা, বাংলাদেশে বাঙালি থাকবে না তো 'কিরঘিজ' থাকবে? আজো বরাকের হিন্দুরা প্রকাশ্যেই মুসলমানদের বলে 'বাঙাল'! এরা এটি কখনোই বুঝতে চায়নি যে  মূলতঃ কৃষক হবার সুবাদে এতোদিন  মুসলমানদের  কাছে ভাষা ততো গুরুত্ব পায় নিযে ভাষা সরকারী কাগজে লেখালে নিরাপদে থাকবেন তাই লিখিয়েছেন  বরাকে অবশ্য তারা চিরদিনই নিজেদের বাঙালি লিখিয়েছেন, যদিও মধ্যবিত্ত সমাজ তার জন্যে কোনো সম্মান জানায় নি তেমন
       কিন্তু বদরুদ্দিনের দল শুরু থেকেই অন্য প্রবণতা দেখাচ্ছেতাঁর দলের বদরপুরের বিধায়ক নির্বাচিত হয়েই ১৯৬১র শিলচরের গণহত্যার পর গঠিত মেহরোত্রা কমিটির প্রতিবেদন কেন প্রাকাশিত হবে না, এই প্রশ্ন তুলে বিধান সভার বাইরে ও ভেতরে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিলেনঅন্য বিধায়ক আতাঊর রহমান রাজ্য বিধানসভাতে বাংলাতে শপথ নিয়েছিলেনবদরুদ্দিন প্রায়ই বলেন বটে অসমিয়া সংস্কৃতি রক্ষা করাই তার দলের লক্ষ্যকিন্তু কথায় কথায় এ ইঙ্গিতো দিতে ভুলেন না যে বাঙালিদের বিপন্ন হতেও তিনি দিচ্ছেন নাযখনই ভাটি অসমের মুসলমান মজুররা উজান অসমে বা পূর্বোত্তরের অন্য রাজ্যে কাজ করতে গিয়ে মার খান, তিনি প্রকাশ্যেই বাঙালি নিপীড়নের বিরুদ্ধে সোচ্চার হন 
     গেল বছর তাঁর দলের কিছু কর্মী ভাটি অসমের গোয়ালপাড়াতে এক সম্মেলন করে নিজেদের বাঙালি বলে ঘোষণা করবার উদ্যোগ নিয়েছিলেনউদালগুড়ির দাঙ্গা ও ৩০ অক্টোবরের ধারাবাহিক বোমা বিষ্ফোরণের ( যেটির জন্যে প্রথমে মুসলমান জঙ্গীদের দায়ী করা হলেও ধরা পড়ে বডো উগ্রপন্থী) পর সে উদ্যোগে পানি পড়ে এই উদ্যোগে হোমেন বরগোঁহাইয়ের মতো আপাত উদার বুদ্ধিজীবিও বেশ ক্ষেপেছিলেন এ নিয়ে আমারও এক লেখা ছেপেছিল দৈনিক জনকণ্ঠ ( এখানে দেখুন)  তখন ঝিমিয়ে গেলেও কিন্তু তলায় তলায় যে একটি চোরাস্রোত বইছে তা বোঝা যায় এই ঘটানাতে যে বদরুদ্দিন পুত্র অসমিয়া জানেন না, এটা কংগ্রেসের মতো মৃদু জাতীয়তাবাদীদের কাছেও আর কোনো ইস্যু নয়ইস্যু বাংলা না জানা।সম্প্রতি আলগাপুরের প্রাক্তন বিধায়ক সহিদুল আলমকেও দেখা যাচ্ছে পুরোনো পাপের প্রায়শ্চিত্ত করবার উদ্যোগ নিতে । তিনি এখন এ আই ডি ইউ এফ আর তৃণমূল কংগ্রেসের ঐক্য ঘটিয়ে বাঙালি ঐক্য সম্ভব করে তুলতে চান।এগুলো  এ রাজ্যের বাঙালিদের কাছে নিশ্চইয়ই এক সুখবর যদিও হাইলাকান্দির 'সাহিত্য' পত্রিকার শততম সংখ্যাতে 'নিরালম্ব'এর মতো গল্পের লেখক অরিজিত চৌধুরীদের মতো বুদ্ধিজীবিদের কাছে এও এক দুঃসংবাদ মাত্রকারণ তাঁরা একে দেখেন 'বাঙলাদেশী আধিপত্য কায়েমে'র এক ষড়যন্ত্র হিসেবেইএদের মতো বাঙালিরা হচ্ছেন মুসলমানদের কাছে শাখের করাতের মতোআসতেও কাটেন, যেতেও কাটেন 
      আমার ব্যক্তিগত অনুমান হলো, এ রাজ্যে অচিরেই বাঙলা ভাষা ও সংস্কৃতির আন্দোলনের নেতৃত্ব দেবেন মুসলমানেরাকারণ হিন্দুদের নয়, একমাত্র এদেরই আছে নিচু তলা অব্দি সংযোগশ্রমিক কৃষকদের মধ্যেআগামী আদমসুমারিতেই এ রাজ্যের জনবিন্যাসের  চরিত্র পাল্টে যাবার সম্ভাবনা প্রবল
ষাটের দশকে এদের যেভাবে অসমিয়া লিখিয়ে রাজ্যের জনবিন্যাসের চরিত্র পালটানো হয়েছিল তা নিয়ে রাজ্যের প্রখ্যাত অসমিয়া বুদ্ধিজীবি ডহীরেন গোঁহাইর উদ্ধৃতি দিয়ে আরো এক বুদ্ধিজীবি ড দেবব্রত শর্মা তাঁর বহুখ্যাত গ্রন্থ অসমিয়া জাতি গঠন প্রক্রিয়া আরু জাতীয় জনগোষ্ঠীগত অনুষ্ঠানসমূহ গ্রন্থে লিখেছেন যে . . .ডহীরেন গোঁহাইর মত এই যে ১৯৬১-৭১ সময়চোয়াত ৫৭%র পরা ৭১% শতাংশলৈ অসমীয়াভাষীর  এই চমকপ্রদ সংখ্যা বৃদ্ধি ঘটোয়া হৈছে রাজনৈতিক হাত-সাফাইর জরিয়তে। তেঁও সকীয়াই দিছে যে এনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিমিষতে থান-বানো হৈ যাব পারে ।( পৃষ্ঠা ৫৪৮)  আমাদের অনুমান এই থান-বান ( টুকরো টাকরা ) হয়ে যাবার সময় সমাগত। 
 
      বরং গণতন্ত্রে যে ভাবে পৃথিবীর সব দেশে, মায় বাংলাদেশেও, 'সংখ্যাগরিষ্ঠরা' রাজ করে তাতে অন্য এক বিপদ মাথা তুলতেই পারেসে বিপদ 'বাংলাদেশী'র নয়, বাঙালি উগ্রজাতীয়তাবাদেরবাঙালির ' আপনা মাংসে হরিণা বৈরি' দশাপশ্চিম বাঙলা, বাংলা দেশ, ত্রিপুরা কোত্থাও অবাঙ্গালি দুর্বল সংখ্যালঘুরা নিরাপদে নেইতাদের ভাষা ও সংস্কৃতির সমান সম্মান ও স্বীকৃতি নেইপূর্বোত্তরের জনগোষ্ঠীগুলোকে এখনো বাঙালি বুদ্ধিজীবিরাও নির্বিকার 'পাহাড়ি' বলে গল্পে কবিতাতে লিখে চলেএদের সম্পর্কে জানা র আগ্রহ অতি অল্পবাঙালির উন্নাসিকতা দেখেই অসমিয়া মনেও 'অসমিয়াকরণে'র স্পৃহা জেগেছিল একদিনআজো তাই আছেতাই যারা 'ভাষা জাতীয়াতাবাদ'কে   ( এদের মধ্য আমাদের অনেক বামপন্থী বন্ধুরাও আছেন) ধর্মীয় সাম্প্রদায়িকতার  দাওয়াই বলে ভাবেন তাদের দলে আমিনেই'ভাষা সাম্প্রদায়িকতা' যে কী ভীষণ দম বন্ধ স্থিতির জন্ম দেয় জানবার জন্যে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকাতে এসে বাস করার অভিজ্ঞতা চাই  
     তাই আমরা যারা বর্তমান গণতন্ত্রের বদলে  'সংখ্যালঘুও তার ভাষা-ধর্ম নিয়ে সমান নিরাপদ ও সম্মানিত বোধ করবে' এমন এক উন্নত তথা নয়া গণতন্ত্রের স্বপ্ন দেখি তাদের দায়িত্ব আগামী দিনের অসমে বাড়ল বলেআমাদের তখন অবশ্যই অসমিয়া সহ অন্য ভাষীদের সম্মানের পক্ষে দাঁড়াতে হবে

Sunday, 18 October 2009

An Interview with the Poet Anshuman Kar


আমি অনেক দিন ধরেই লিখছিলাম কলকাতার সাহিত্য অঙ্গন এক ক্ষমতার কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে। এই সত্যকেই স্বীকার করছেন বাংলা একাদেমি পুরস্কার ও কৃত্তিবাস পুরস্কার পাওয়া কবি অংশুমান কর । শুভপ্রসাদ নন্দীমজুমদারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানাচ্ছেন তেমন কিছু কথা । প্রথমাংশ বেরিয়েছে ১৮-১০-০৯এ ।দ্বিতীয় অংশ বেরুলো ২৫-১০-০৯এর সাময়িক প্রসঙ্গে। এই দ্বিতীয় অংশে আমার মতে উল্লেখযোগ্য কোনো কথা নেই। তিনি লেখকদের মধ্যে প্রগতিশীল-প্রতিক্রিয়াশীল বিভাজন স্বীকার করেছেন। আমার মতে এগুলো নিরর্থক। তিনি নিজেই সিপিএমের মতো এক প্রতিক্রিয়াশীল দলের কর্মী।  পুরো লেখা পড়তে ছবিটি টিপে পিকাসাতে চলে যান। বড় করুন আর পড়ুন।

Friday, 9 October 2009

KOBITA: THE POEM

Swajatyer Ohomikar Theke Mukti Daner Shikkhai Ajaker Diner Prodhan Shikkha: Rabindranath Thakur




কবিতা
মূল অসমিয়াঃ নীলিম কুমার
বাংলা অনুবাদঃ সুশান্ত কর

ফেলে যাওয়া তোমার ঘরটাতে আমি দাঁড়িয়ে আছি ।
বিছানাতে ছড়িয়ে পড়ে আছে জিনিসগুলো
পাল্টে যাওয়া কাপড়টি, চিরুণি, চিরুণিতে পাক খাওয়া
একটি চুল, চুলের ক্লিপ। চেয়ারে
পড়ে রয়েছিল টাওয়েলখানা, তখনো সামান্য ভেজা ।
ছিটকে পড়ে রয়েছিল দুদিকে দুটো সেণ্ডেল, নির্জনতারো
হাত নেই যে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখবে !
খিড়কিটাও আধমেলা রইল ।
ফ্রিজের পানিগুলো এতো ঠাণ্ডা হয়ে গেল যে মুখে দেয়া যায় না ।
টেবিলে আধা গ্লাস পানি---খেয়ে রেখে গেছিলে
না খেতে ভুলে গেলে ?
দোয়ারখানা আজিয়ে গেছিলে শুধু । তালাও দিলে না।
তালা দিতে ভুলে গেছিলে না তালা চাবি খোঁজে পাওনি
তাড়াহুড়োতে !

এমনি করে কই চলে গেলে সোনা,
এতো তাড়াহুড়ো করে চলে যাবার জন্যে
তোমার যে অন্য আরেক জগৎ ছিল জানা ছিল না ।
( নীলিম কুমার একালের আধুনিক অসমিয়া কবিতার অগ্রণী পুরুষ; বাংলা কবিতাতে যেমন জয় গোস্বামী। কবিতা শিরোনামেই কবিতাটি বেরিয়েছে ১৬সেপ্টেম্বর,০৯ সংখ্যা প্রান্তিকে)


The Autumn issue of ‘Byatikrom’ ; The Problem of Practicing Bengali Language and Literature in Assam

গুয়াহাটি থেকে প্রকাশিত ‘ব্যতিক্রম’ কাগজটি তাদের সেপ্টেম্বরে (০৯) প্রকাশিত পুজো সংখ্যা দিয়ে এক বছর পূর্ণ করে অসমের বাংলা প্রকাশনার সংজ্ঞাই  পাল্টে দিয়েছে। এর আগে বহু চেষ্টা হলেও অসমে
ব্যবসায়িক ভিত্তিতে  প্রকাশিত কোনো বাংলা সাময়িক পত্রিকাই এক বছর পার করতে পেরেছে বলে মনে পড়ে না। শিলচর থেকে সন্দীপ আচার্য দশকখানিক আগে এক চেষ্টা করেছিলেন। পরম ভট্টাচার্য , সুজিত
দাসেদের মতো ব্যক্তিত্ব এর সঙ্গে জড়িয়ে ছিলেন। কিন্তু এক বছর পুরো করেছিল বলে মনে হয় না। তাই এর নামও ভুলে গেছি। একাধিক দৈনিক কাগজ বেরোলেও তাদের মালিকেরা কেঊ এই পথে  পা বাড়াতে
সাহস করেনি। এখন শুনছি যুগশঙ্খ পা বাড়াবে । ইতিমধ্যে ‘অন্যদেশ’ নামে অঞ্জলি সেনগুপ্তের সম্পাদনাতে আরো একটা কাগজ বেরুচ্ছে। ভালো কথা। যত বেরোয় অসমের বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের জন্যে ততই সুসংবাদ বয়ে নিয়ে আসবে।
    এর আগে সোনার কাছাড় ও যুগশঙ্খ শারদসংখ্যাও দু’একবার বের করেছিল । কিন্তু ধারাবাহিকতা রাখতে পারেনি। বোধহয় খরচ ওঠেনি। বরাক উপত্যকাতে যারা অলিতে গলিতে ঘটা করে উনিশ
–একুশ পালন করেন তারাও এ ধরণের কাগজ কিনে বাঁচিয়ে রাখাটা ধর্ম বলে জ্ঞান করেন না। শুধু লেখক-বুদ্ধিজীবিতে আর কতদূর এগুতে পারে! বরাক তথা অসমের বাঙালির বাঙালিয়ানার  মানে পশ্চিম বাংলার থেকে ধার করে আনা আধখানা ( পড়ুনঃ হিন্দু বাঙালিয়ানা)  । কলকাতার ছোঁয়া না থাকলে কিছুই তাদের মুখে রোচে না। মায়, ধর্মও না । কলাকাতার প্রকাশনাগুলো আমাদের টাকাতে সওদা করে।  কিন্তু তাদের রচনাতে এখানকার মাটির গন্ধ জুড়ে দিতে তাদের বয়েই গেছে! তাঁরা হিল্লী-দিল্লী বছরে বেশ ক’বারই করেন । কিন্তু অসমে বুড়ো বয়সে এলেও নির্দ্বিধাতে সরল মনেই বলে ফেলেন, এই প্রথম এলাম। এখানেও যে বাঙলাতে লেখা হয়, প্রচুর হয়, জানলে ‘বিপন্ন বিষ্ময়ে’ বলে ওঠেন ‘ওমা! এ কী! এখানেও হয় !’ সম্প্রতি ক’মাসের ব্যবধানে এসে গেলেন হর্শ দত্ত, জয় গোস্বামী, মহাশ্বেতা দেবী। সব্বারই মুখে আমরা শুনেছি ঐ একই কথা ।  
      এ অবস্থাতে ব্যতিক্রমের সম্পাদক সৌমেন ভারতীয়া  কী যাদুটি করেন , তা তিনিই জানেন। কয়েকটা সংখ্যা পড়ে গেলে অবশ্য যাদুর রহস্য অনুমান করাটা পাঠকের পক্ষে অসুবিধে হয় না । কিন্তু সেটি প্রকাশ্য করে দিয়ে তাদের ভাতে মারার ইচ্ছে আমাদের মোটেও নেই। শুধু আশংকা হয়ে এ যাদুতে বেশি দিন চলবেতো ! তা যাদুকর স্বয়ং জানেন। আমরা শুধু শুভেচ্ছাই জানাতে পারি। ইংরেজিতে যাকে বলে professionalism তা তাদের আছে পুরো মাত্রাতে। শুধু অর্থ নয় , তথাকথিত ‘প্রতিষ্ঠান বিরোধিতা’র  তত্বও আগেকার সম্পাদকদের পথ রোধে দাঁড়িয়েছিল। একটা বিকল্প প্রতিষ্ঠান তুলে ধরাই যে অসমের বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের রাহু মুক্তির অন্যতম পথ এই সহজ কথা তাদের অনেকের মাথাতেই ঢুকত না। ফলে তাঁরা ‘অপসংস্কৃতি’ নামের অস্পৃশ্যতার ছোঁয়া মাড়িয়ে যা বের করতেন তা শুধু গুরু গম্ভীর বৌদ্ধিক জ্যেঠামশাইদেরই পাতে তোলবার মতো ছিল।  কখনো বা একেবারেই প্রাচীন  ছেঁড়া পুথির রঙে  ও রেখায়। এখনো এই কম্প্যুটার যুগেও অনেকে সেই ‘লেটারপ্রেসের’ যুগের নিরলঙ্কার রূপটিকেই সাময়িক
পত্রের আদর্শ রূপ বলে ভাববার কুসংস্কার মুক্ত হতে পারেন নি। কেবল তাই নয় সেই কুসংস্কার নিয়ে তাদের বেশ গর্বও আছে। তাদের নিজেদের কাগজ যেমন তেমন চলে যায়। তাতেই তাদের এক আত্মতুষ্টি
আছে। বাকি আঙিনা যে ঝরা পাতাতে নোংরা হয়ে আছে এ নিয়ে তাদের কোনো মাথা ব্যথা নেই। এভাবে তারা ‘কলকাতা’র প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যবসা বাঁচিয়েই রেখেছিলেন নিজেদের অজান্তে।  দৈনিক কাগজগুলো
দেড় দশক আগে থেকেই অসমে পশ্চিম বাংলার কাগজগুলোর বাজারে ভাগ বসিয়ে ছিল। কিন্তু সাময়িক পত্রগুলো পারে নি।
                ‘ব্যতিক্রম’ এদিক থেকে ব্যতিক্রম। তাঁরা এক বিকল্প  প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলবার পথে এগুচ্ছেন। তা করতে গিয়ে কিছু অশুভ আপোস করতে হচ্ছে। মায় প্রচ্ছদ থেকে শুরু করে ভেতরের
পাতাগুলোতে সুন্দরী মেয়েদের ছবিতে ছড়াচ্ছড়ি। এতেও আমরা আপত্তির কিছু দেখিনা। মেয়েরা যত পাঠিকা হয়ে উঠে আসবেন তত ছেলেদের ছবিতেও ভরে যাবে  ব্যবসায়িক কাগজের পাতাগুলো। মানব
শরীরের থেকে সুন্দর কিছু আছে কি এ ধরণীতে ?! এ প্রশ্নটি নিয়েও ‘প্রগতিশীল’দের ভাববার যুগ বোধহয় পেরিয়ে গেল। শুধু মেয়েদের মর্যাদা যাতে শরীর মাত্রে নেমে না আসে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে অনুরোধ করব সম্পাদককে ।
    এমনিতে কাগজটি  জীবন-জীবিকা ও ব্যক্তিত্ব গঠনের পরামর্শ দেয়াটেয়াতে নিজেদের সীমাবদ্ধ রাখে। সাহিত্যের খবর কিছু দিলেও , সাহিত্যের কাজ কিছু এতে রাখতেন না এতোদিন। কিন্তু শারদ সংখ্যাতে এর ব্যতিক্রম ঘটিয়েছেন আর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, “আগামী সংখ্যা থেকে আমরা সাহিত্যের জন্যে কয়েকটি পাতা বরাদ্দ করছি।” সুতরং আমন্ত্রণ জানিয়েছেন, “ সাহিত্যের পাতার জন্যে যে কেউ
আমাদের দপ্তরে মৌলিক লেখা পাঠাতে পারেন।” লেখাপড়া, জীবিকা নিয়ে এ সংখ্যাতেও বেশ কিছু ভালো লেখা ও তথ্য রয়েছে।  বিভাস লাহিড়ি লিখেছেন ‘বিদেশে উচ্চশিক্ষাঃ ১০ টি পরামর্শ ; প্রশান্ত চাকলাদার
লিখেছেন ‘Career & Respect  দুটোই আছে মানবাধিকারের কোর্সে ; গীতার্থ সেঙ্গুপ্ত লিখেছেন ‘ তরুণ প্রজন্মের স্বপ্নের পেশা Visual Merchandising ; Interview সহজ, সাবলীল, সপ্রতিভ থাকুন লিখেছেন াবলীল, সপ্রতিভ থাকুন লিখেছেন নিখিল তালুকদার ; কর্মক্ষেত্রে—Sales & Marketing লিখেছেন ধনঞ্জয় মেধি ; ইতি মজুমদার লিখেছেন ‘পরীক্ষার মুখে নয় , পাঠ পরিকল্পনা করো এখন থেকেই । বিকাশ
সরকার প্রত্যেক সংখ্যাতেই লেখেন কোনো না কোনো এক ব্যতিক্রমী দেশি বিদেশী চেনা-অচেনা ব্যক্তিত্ব নিয়ে যাদের জীবন পাঠকদের জীবনের নতুন আশার আলো জাগাতে পারে বলে তাঁর মনে হয় । এ
সংখ্যাতেও  ‘ আমার শৈশবকে কি তুমি দেখেছো ?’ রচনাতে সদ্য প্রয়াত মাইকেল জ্যাকসনের  স্মৃতিচারণ করেছেন।  এ লেখার উপরী  পাওনা ‘Have you seen my childhood?’ গানের পূর্ণপাঠ । 
    শুরু থেকে প্রতিটি সংখ্যাতে দু’একজন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে বেছে নিয়ে সাক্ষাৎকার নিয়ে এসছে ‘ব্যতিক্রম’। সে সাক্ষাৎকারকে প্রচ্ছদ নিবন্ধের মর্যাদা দিয়েছে ।  জানিয়েছে সেই ব্যক্তি ব্যতিক্রমী। তাতে
বুঝি, জীবনে তাঁদের সফলতার পেছনকার ইতিবৃত্য জানিয়ে কাগজটি তরুণদেরও উদ্বুদ্ধ করতে চেয়ে এসছে। শুরু করেছিল পাথারকান্দির বিধায়ক কার্তিক সেনা সিনহাকে দিয়ে। আমার এখনো মনে পড়ে সামান্য গরীব  কৃষকের ঘরের ছেলে যিনি ছেলেবেলাতে গরু চরাতে মাঠে যেতেন তিনি এখন একজন সফল রাজনীতিবিদই নন , একজন সফল বড়মাপের ব্যবসায়ী এবং সমাজসেবীও। তাঁর রাজনীতির সঙ্গে বর্তমান লেখকের দূর দূর পর্যন্ত কোনো সহমত পোষণ করবার কোনো সম্ভাবনাই নেই। কিন্তু অতি কম বয়সে  তাঁর উত্থানের যে গল্প ‘ব্যতিক্রম’ শুনিয়েছে সে এক কথাতে ‘রূপকথা’! মাঝে মাঝে মনে হয়েছে এর পেছনে প্রচুর বাঁকা পদক্ষেপ আছে নিশ্চয়ই। কিন্তু সে রকম পা বাড়াতেও কিছু সদর্থক গুণের দরকার পড়ে। সেই গুনগুলো আমাদের অনেক কম আছে , আমরাতো ব্যর্থতার ভয়ে আগে আগেই পিছিয়ে আসতে অভ্যস্থ । 
       এ সংখ্যাতে তেমন ব্যক্তিত্ব মহাশ্বেতা দেবী। তাঁকে নিয়েই প্রচ্ছদ নিবন্ধ। কিন্তু তিনি ছাড়াও এবারে আছেন আরো অনেকে।  ত্রিপুরার শিক্ষা সংস্কৃতি মন্ত্রী অনিল সরকার, ইংরেজি দৈনিক আসাম ট্রিবিউনের
সম্পাদক তুলসীগোবিন্দ বরুয়া,প্রতিদিন কাগজের সম্পাদক জয়ন্ত বরুয়া,যুগশঙ্খের সম্পাদক বিজয় কৃষ্ণ নাথ, নিউজ লাইভ টিভি চ্যানেলের সম্পাদক অতনু ভূঁইয়া ( অসমের বাংলা ভাষা যে এক স্বতন্ত্র চেহারা
নিচ্ছে তার প্রমাণ হলো , ব্যতিক্রম লিখেছে—ভূঞা) , গুয়াহাটির এক সফল বাঙালি ব্যবসায়ী গৌতম বন্দোপাধ্যায়, ফ্যাশন ডিজাইনার প্রশান্ত ঘোষ, সংস্কৃতি কর্মী মিতালি নাথ, নগাঁওয়ের নৃত্য শিল্পী মন্দিরা
ভট্টাচার্য , রাজ্যের বাঙালি  কৃষিমন্ত্রী নুরজামাল সরকার। তালিকাটি থেকে একটি বিষয় পরিষ্কার এই উপত্যকার বাংলা কাগজ অন্তত বাঙালিদের মধ্যে নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখবেনা। আসাম ট্রিবিউন বা প্রতিদিনের মতো কাগজ এ রাজ্যের সংবাদ মাধ্যমে বহুদিন ধরে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। কাগজগুলোর ভেতরের খবর আমাদের কমই জানবার সুযোগ হয়।   শারদ সংখ্যাতে ব্যতিক্রম সে সুযোগ করে দিলেন। ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার বাঙালি রাজনীতির নেতাদের কথা এলেই কিছু হিন্দু নেতৃত্বের কথা শুনে শুএনেই আমরা অভ্যস্থ ছিলাম। নুরজামান তেমন সফল রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নন। কিন্তু যে জন্যে তাঁর সাক্ষাৎকারটি দরকারি মনে হল তা এই যে নুরজামানতো বটেই  ব্যতিক্রমও তাঁকে বাঙালি বলে চিহ্নিত করছে। এ উপত্যকার থেকে উল্লেখযোগ্য বাঙালি নেতা উঠে না আসার কারণ সম্পর্কে তিনি বলছেন, “ এই উপত্যকায় বাঙালিদের বসবাস বেশিদিনের নয়। আগে থিতু হোক , তারপর দেখবেন অনেক বাঙালি নেতা উঠে আসবে এখান থেকেই।” না প্রশ্ন না উত্তর –কোনোটাই কাজের নয়। দু’টতেই সত্যভ্রম আছে।   কিন্তু তাঁকে বাঙালি বলে তুলে ধরে ব্যতিক্রম অন্তত একজন বাঙালি বিধায়কের সংখ্যা এ রাজ্যে বাড়িয়ে দিল। এমন করে দেখলে আরো বহু  বাঙালি নেতার দেখা পাওয়া যাবে।  আশা করছি বুদ্ধিমানেদের জন্যে এই ইশারাই যথেষ্ট হবে। 

       মহাশ্বেতাকে উপেন্দ্রনাথ ব্রহ্মের স্মরণ অনুষ্ঠানে পুরস্কার দিয়ে সম্মান  জানাতে ডাকা হয়েছিল।  উপেন্দ্রনাথ বডোদের জাতীয় পিতা বলে সম্মানিত হন। কিন্তু যে আন্দোলন তাঁর হাতে গড়ে উঠেছিল সেটি সব জনজাতীয়দের মুক্তির লক্ষ্যে পরিচালিত ছিল না। বরং সে  আন্দোলনের ধাক্কাতে বিপন্ন হয়েছে এ রাজ্যের রাজবংশি, ঝাড়খণ্ডি সহ অন্য প্রায় সমস্ত জনজাতি। আর ময়মনসিংহমূলীয় মুসলমান চাষিদের কথাতো বলেই লাভ নেই।  তেমন আন্দোলনের পুরোধার স্মরণে পুরস্কার নিতে তিনি কেন এলেন এ প্রশ্নটা মনে কাঁটা বিধিয়ে দেয় বটে। বোধহয় কিছু  জনজাতীয় আন্দোলন যে নিপীড়ক চরিত্রের হতে পারে সে  নিয়ে তাঁর ধারণা কম।  এমনিতেও  এ তাঁর দ্বিতীয়বার অসম ভ্রমণ। এর আগে একবার অসম হয়ে ত্রিপুরা গেছিলেন জানালেন। ‘সব মনে নেই, ভুলেও গেছি অনেকটা’—তাই বোধহয় এখানকার জনজাতীয় সমস্যার জটিল চরিত্রটা তেমন জানা নেই তাঁর।  সাক্ষাৎকারেও তেমন প্রসঙ্গ উঠে এলো না। কিন্তু সেই তিনি ব্যতিক্রমের সদস্যদের মৃদু ধমকে দিয়েছেন দেখে আমাদের বেশ কৌতুক বোধ হয়। কলকাতার লোকেরা ধমকে টমকে দিলে আমরাও বেশ বাধ্য ছাত্রের মতো মেনে টেনে নিই। ব্যতিক্রম জিজ্ঞেস করতে যাচ্ছিল, “ আপনি এই যে লোধা, শবর, ওঁরাও, সাঁওতাল এদের নিয়ে . . .। তিনি বললেন, “ লোধা, শবরদের সঙ্গে ওঁরাও-সাঁওতালদের এক করে দেখলে চলবে না , ওরা আলাদা।” ব্যতিক্রম বলল, “ ঠিক আছে এই যে সমাজের অন্ত্যজ শ্রেণির কাছে . . .” তিনি বললেন, “ না , না ওরা অন্ত্যজ নয়। কয়েকটা ভালো ভালো শব্দ বললেই ইন্টারভিঊ হয় না।”  ‘অন্ত্যজ’ শব্দটা  কেবল ব্যতিক্রমের নয় এই উপত্যকার বাঙালি মধ্যবিত্তের সমাজবিচ্ছিন্ন চরিত্রকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখায় বটে। কিন্তু আমাদের প্রশ্ন হলো এমন
ধমকে  দেবার অধিকারটা তিনি মহাশ্বেতা বলেই তাঁকে দিতে হবে? তিনি কি জানেন যে এ রাজ্যে আমাদের ভাষাচাষিদের অবস্থাও ‘অন্ত্যজ’দের থেকে খুব একটা ভালো নয়? তিনি কি জানেন না আমাদের
লেখকেরা সব্বাই একলব্যের স্কুলের ছাত্র ! তাঁর জানবার দরকার কী!  জয় গোস্বামীরো দরকার ছিল না এখানে আসবার আগে, ছিল না হর্শ দত্তেরও । যদিও শ্রী দত্তের কাগজটি ভারতের এই টুকরোতে লক্ষ লক্ষ
টাকার ব্যবসা করে প্রতি মাসে!  আমরা কেবল ‘অন্ত্যজ’ নই, ‘অন্ত্যজে’র মানসিকতার থেকেও মুক্ত নই । সে প্রমাণ এ সংখ্যা ব্যাতিক্রমের পাতাতেই আছে। কবিতা লিখেছেন অনেকেই। পীযুষ রাউত থেকে শুরু
করে স্বর্ণালি বিশ্বাস ভট্টাচার্য, অনীতা দাস টন্ডন, রবীন্দ্র  সরকার,  সুব্রত পাল, তপন মহন্ত, দিলীপ বিশ্বাস,অমরেশ দত্ত, কানাই লাল জানা স্মৃতি পাল নাথ এমন প্রায় বত্রিশজন কবি । আমিতাভ দেব চৌধুরী
লিখেছেন, এক অপূর্ব কাব্যোপন্যাস ‘ঈশ্বরের শেষ গুপ্ত চর’। সঙ্গে আছে জয় গোস্বামীর কবিতা ‘কী বিস্মিত নাম’। অসমের কোনো কাগজে এই প্রথম লিখেছেন –এই সংবাদটি ব্যতিক্রম জানিয়ে দিয়েছেন।
           আমাদের অভিমত হলো তিনি এখানকার কাগজে আর বেশি লিখবেনও  না। তাঁকে একেবারে কাগজটির শুরুতে অন্য নিবন্ধ-প্রবন্ধ সহ সব রচনার আগে  জায়গা করে দেয়া কেন ? এটি তাঁকে সম্মান জানানো না আমাদের লেখকদের অপমান করা হলো এই প্রশ্নটা ওঠাই  উচিৎ ।  আমাদের অশুভ ছায়া থেকে তাঁকে বাঁচানো হলো কি ? এই হীনমন্যতা যত তাড়াতাড়ি আমরা ছাড়তে পারি তত দ্রুত আমাদের রাহু মুক্তি ঘটবে। ব্রজেন্দ্র সিংহের আশ্চর্য সুন্দর ও তথ্য সমৃদ্ধ স্মৃতিকথা ‘আমাকে নিয়ে সাতকাহনে লিখেছেন, “ আমি মাঝে মাঝে অভিমানী হয়ে যাই । একবার সন্দীপন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বাংলা কবিতা নিয়ে জোর তর্ক  বা আলোচনা চলছিল, মাঝখানে বীরেনবাবু ( রক্ষিত) বললেন, ইনি কিন্তু বাঙালি নন। সঙ্গে সঙ্গে সন্দীপনের কথা বলা বন্ধ। আর একটি শব্দও বলল না আমার সঙ্গে এই নিয়ে ।” এই অভিমানের সম্মান দিতে  আমরাই বা শিখব কবে ?
          ব্রজেন্দ্র বাবু না হয় অবাঙালি, বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি মানুষ। কিন্তু বাঙালি হলেই বা আমাদের অভিজ্ঞতা কেমন, তার সন্ধানও পাওয়া যাবে তাঁর লেখা থেকে। তিনি লিখেছেন, “ তিনি ( বীরেন রক্ষিত) দারুণ অভিমানী। নিজেকে প্রায় গুটিয়ে রেখেছেন । দল বেঁধে হইচইয়ের মধ্যে নেই সুনীল-শক্তিদের সঙ্গে তেমন ভাব নেই। কারো সঙ্গেই সম্ভবত বনত না। তিনি ছিলেন একা ও অভিমানী। তিনি বলতেন লিখে কী হবে । আমাদের জন্যেতো আর একটা চ্যাপ্টার থাকবে না । ফুটনোটেও নাম থাকবে কিনা ঠিক নেই। তাঁর সঙ্গে মিশে আমিও একজন পেসিমিস্ট হয়ে উঠলাম। . .  .  আমি আমার কবিতার বইয়ের প্রচ্ছদ সত্যজিৎ রায়কে দিয়ে আঁকাব, অন্তত অনুরোধ করব। বীরেন বাবু বললেন, সত্যজিৎ রায় কর্মচারীর আঁকা একটা ছবি দিয়ে দেবেন। ” চাকরি শেষে কলকাতাবাসি বীরেন রক্ষিতের সঙ্গে জীবনে প্রথম আমার দেখা হয়েছিল  ২০০৫এ পুনর্বিন্যাস পাঠক্রমে যোগ দিতে গিয়ে। রবীন্দ্রভারতীতে।  কমল কুমারের উপর বক্তৃতা করেছিলেন। বক্তৃতা শেষে দু’চারটে কথাতে আলাপ পরিচয়। আমার তাঁকে মনে হচ্ছিল হতাশ, নিঃসঙ্গ ও দুর্বল। তার দিন  বছর না ঘুরতেই তিনি মারা যাবেন তখন কি ভেবেছি! বীরেনবাবু না হয় পেসিমিস্ট ছিলেন। শক্তিপদ আমার কলেজের শিক্ষক ছিলেন। নিজে প্রবাসী হবার দিন কতক আগে একবার তাঁর বাড়ি গেছিলাম। তিনি জানালেন দিনকতক আগে এক সাহিত্যের অনুষ্ঠানে কলকাতা গেছিলেন। তাঁর যৌবনের বন্ধু সুনীল এখন আর তাঁকে, ‘কেমন আছো?’ জিজ্ঞেস করবারও সময় পান না। মৃত্যুর পর আনন্দ বাজার বোধহ্য় একটা ছোট্ট  সংবাদ ছেপেছিল। তাও শিলচরের কেউ তুলিয়েছিল বলে। ব্যস , ঐ টুকুনি। ব্রজেন্দ্র সিনহা ( এটিই বোধহয় তাঁর উপাধির আসল বানান)  লিখেছেন, “ শক্তিপদ কবি হিসেবে কারো থেকেই কম নয়। কিন্তু মৃত্যুর পর সেই সম্মান তাকে দেওয়া হয় নি     বাইরে ।”  সম্মান মৃত্যুর দিনে জীবনানন্দেরও মেলেনি । কিন্তু তাঁর সঙ্গে শক্তিপদের ভাগ্যকে মেলানো যাবে কি ? এ হচ্ছে আমাদের মতো  ‘অস্পৃশ্যদের অদৃষ্ট’ । সে অদৃষ্ট ফেরাতে আমরা পাটকেলটি ছোঁড়ব , সে পরামর্শ আমাদের   নয় । জয় –মহাশ্বেতাদের আমাদের লাগবে। কিন্তু তাই বলে আমাদের অতি সম্মানের আর ভালোবাসার শিক্ষক, ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার সাহিত্যের আকাশে  সুর্য টেনে আনবার রথের  যিনি সারথী, সেই  উষা রঞ্জন মহাশ্বেতাকে তিন বছর আগের পাওনা প্রণাম করবার জন্যে উতলা হবেন আর প্রত্যাখ্যাত হবেন এর ভার আমাদের সহ্য করবার কোনো দায় নেই ।
         ‘গুয়াহাটিতে আমার সাহিত্য আড্ডা’ নামে মানস শিকদার এক অতি সুন্দর স্মৃতি কথা লিখেছেন। যাকে বলে সাহিত্যিক প্রবন্ধ—তার মর্যাদা পাবার যোগ্য এটি। শুরু হয়েছে এরকম, “ ঢ্যাঢারং ঢ্যাটাং ঢ্যাটাং,
ঢ্যাঢারং ঢ্যাটাং ঢ্যাটাং শব্দটা কনে বাজতেই চোখের সামনে যেন খুলে যায় এক রঙিন ক্যালাইডোস্কোপ , বুকের ভিতর থেকে উড়াল মারে হাজার পাখির অক্লান্ত ডানার বিস্তার, যেন খুলে যায় সিমসিমের হীরক
দ্যুতিময় গুহামুখ। . .” প্রবন্ধটি গুয়াহাটির বাংলা সাহিত্যের ইতিবৃত্ত  জানতে গেলে পরের কালের লেখকদের জন্যে এক ভালো আকর হবে। এতে তিনি লিখেছেন এক জায়গায়, “  ‘ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার
লেখালেখির সমস্যা, একটি খসড়া’ নামক মানিক দাসের একটি প্রবন্ধ যা লেখাকর্মীর শরৎ সংখ্যায় ছাপা হয়েছিল, যথেষ্ট বিতর্ক তুলেছিল। বেশ কিছু দিন সেই প্রবন্ধ উত্তেজনার ঢেঊ তুলেছিল বিভিন্ন আড্ডায়।
পরবর্তী শরৎ সংখ্যায় তার জবাবে অখিল দত্ত পাল্টা লিখেছিলেন এক দীর্ঘ প্রবন্ধ ‘আমাদের সৃজনশীল সাহিত্য কি শূন্য?’ এবং পাশাপাশি ছাপা হয়েছিল মানিক দাসের জবাবমূলক প্রবন্ধ ‘ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার
লেখালেখির সমস্যা বিতর্কের জবাব এবং সিদ্ধান্ত’ । সেই পাল্টা প্রবন্ধ এবং তার জবাব নিয়েও লেখা কর্মী শরৎ সংখ্যা বেশ কিছুদিন যাবৎ উত্তাপ তুলেছিল সাহিত্য আড্ডায়। সেই আগুনে আমরা সকলেই
অল্পবিস্তর হাত সেঁকলেও এবং চায়ের কাপে তুফান তুললেও লিখিত আকারে, পক্ষে বা বিপক্ষে কোনোও যুক্তিসমৃদ্ধ বিশ্লেষণাত্মক লেখায় বিষয়টিকে টেনে নিয়ে যাইনি। সেটা হলে অসমের বাংলা সাহিত্য বিষয়ে
চিন্তা ও চর্চার কিছু দিক নিশ্চয়ই উঠে আসত। উপেক্ষার বিরোধীতা এবং এড়িয়ে যাওয়ার আলস্যপরায়ণতা আমাদের সেই দিকটিকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। ”  এই শেষ বাক্য ক’টি নির্ঘাৎ এক সবল সত্য ভাষণ। এমন বাচনে গুয়াহাটি বা এই উপত্যকার লেখকেরা অভ্যস্ত বলে মনে হয় না। বছর কয় আগে বর্তমান লেখকও এ নিয়ে একটা তর্ক তোলবার চেষ্টা করেছিলাম ‘কবিতার পূর্বোত্তর’ কাগজে। কিন্তু যুক্তি তর্ক কোথায় ! শেষ অব্দি ব্যক্তিগত আক্রমণে সে তর্কের ইতি পড়েছিল। এক ‘নক্ষত্র’কবিতো একবার ফোনেই আমাকে যা নয় তা গালি গালাজ করে বসলেন। বিষয় আর কিছু নয়। প্রশ্ন শুধু এই করেছিলাম যে তিনি  এতো বিদেশি  লেখকদের উদ্ধৃতি ব্যবহার করেন কেন?  যাই হোক সমস্যাটি আছে তার স্বীকৃতি আছে এই লেখাতে। মানিক দাসের বক্তব্য কী ছিল জানবার সুযোগ করে দেন নি মানস। যাই থাক এ নিয়ে তর্ক একটা নিরন্তর  চালিয়ে যাওয়া উচিত। এখনো গুয়াহাটির বাইরে বেশির ভাগ জায়গাতে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে কথা বললে একটি বাঙ্গালি বন্ধু জোটা মুসকিল হয়। এমন কি বেশির ভাগ বাংলার শিক্ষক-অধ্যাপকেরাও মাইনে নেবার  অমানবিক-অসামাজিক কল মাত্র।  বাংলা ভাষা  ও সাহিত্য নিয়ে কাজ করতে গেলে কী ভীষণ মাজাদার কৌতুককর অভিজ্ঞতার মধ্যি দিয়ে যেতে হয় এ নিয়ে পরে আমার লেখার ইচ্ছে আছে।
            এখানেতো অনেক বাঘা বাঘা সংস্কৃতি কর্মীও ভাবেন, কবি মানে রবীন্দ্রনাথ আর তাঁর একটাই বই আছে সেটির নাম ‘সঞ্চয়িতা।’ একবার এক বিশিষ্ট আবৃত্তি শিল্পী যখন জেনেছিলেন যে আমার কাছে ‘রবীন্দ্র রচনাবলী’ আছে কিন্তু ঐ ‘সঞ্চয়িতা’ নেই বেশ হতাশ হয়েছিলেন! কারণ আর কিছু না, কলাকাতার থেকেও কোনো অতিথি এলেও তিনি দেখেছেন ঐ ‘সঞ্চয়িতা’রই খবর করেন। কলকাতার অতিথির থেকেতো আর  আমি বেশি জানতে পারি না!
আরো আসছে অপেক্ষা করুন।


 

Tuesday, 6 October 2009

On Cultural Hegemony


Swajatyer Ohomikar Theke Mukti Daner Shikkhai Ajaker Diner Prodhan Shikkha: Rabindranath Thakur






সাংস্কৃতিক আধিপত্য প্রসঙ্গে
ভাবাদর্শের যায়গা থেকেই অনুসন্ধান করতে হবে সংস্কৃতিরঃ তপোধীর এটাই শিরোনাম সংবাদের। উপশিরোনামে রয়েছে উরগেন্দ্র ভট্টাচার্যের লেখা হেমপ্রভা প্রকাশনীর সাংস্কৃতিক আধিপত্য পুস্তকের আনুষ্ঠানিক প্রকাশ। প্রকাশকও বড়, বড় উদ্বোবোধকও। লেখকের কথাতে পরে আসছি। হেমপ্রভা প্রকাশনীটি পূর্বোত্তর ভারতের সবচে বড় দৈনিক কাগজ যুগশঙ্খের প্রকাশনা শাখা নতুন খুলেছে। আমাদের এ রাজ্যে বাংলা প্রকাশনার ব্যবসাটি একেবারেই সাম্প্রতিক। তাতে যুগশঙ্খের যোগদান নিঃসন্দেহে সুসংবাদ ।  এর আগে যারাই বই বের করতেন সবই প্রায় ব্যক্তিগত উদ্যোগ। কোনো প্রকাশনার নাম থাকলেও তাই। ব্যতিক্রম, নাইন্থ কলাম, সাময়িক অসমের মতো কিছু প্রকাশন যেগুলো গুয়াহাটি থকে কাজ করে সেগুলোও এখনো ব্যবসায়িক উদ্যোগ হতে পারে নি।  যদিও ব্যতিক্রম সেই লক্ষ্যে অনেক দূর এগিয়েছে। বই তাঁরা ভালোই বের করেন , বিষয়ে ও অলঙ্করণে ফেলনা নয় মোটেও। এদেরই অনেকেতো দাবি করছেন গুণবত্তাতে তাঁরা এখন কলকাতাকেও পেছনে ফেলে দিয়েছেন। কথাটা ব্যবসার দিক থেকে সত্য নয়। পূর্বোত্তরের  যারাই  কলকাতা থেকে বই বের করেন তাদেরো ভাগ্য একই। নিজেরাই গাঁটের পয়সা খরচ করেন। তপোধীর ভট্টাচার্যের মতো ভাগ্যবান হাতে গোনা, যাদের বই অন্যে বের করে এবং বিক্রী করে ।  সেদিক থেকে  হেমপ্রভা যদি দাঁড়ায় তবে এ রাজ্যের লেখক অনেকেরই সুদিন আসতে দেরি হবে না। এখানকার লেখকদের বই কিনে পড়বার এক সংস্কৃতিও দাঁড়িয়ে যাবে। আর সেরকম হলে অনেক ভালো বইএর সঙ্গে প্রচুর বাজে বইও যে বেরুবে সে নিশ্চিত। এতে আক্ষেপ করে লাভ নেই বটবৃক্ষ থাকতে হলে তার তলায় অনেক তৃণ-আগাছাও থাকে। এদেরও থাকতে দিতে হয়। এরা থেকে মাটির উর্বরতার প্রমাণ দেয় তাতে বটবৃক্ষও মাথা তুলবার সাহস পায়।  যারা দিতে চায় না, তাঁরা উন্নাসিক পণ্ডিত, সংসার কী রকম করে চলে এ নিয়ে তাদের কোনো ধারণা নেই। বস্তুতঃ এই রাজ্যে বই লেখা ও প্রকাশের শিল্প পিছিয়ে থাকার জন্যে এই সব  উন্নাসিক পণ্ডিতরাও অনেকটাই দায়ী। তাঁরা আমাদের মতো  আগাছাদের আমল দিতে মোটেও   চান না। নিজেদের কেঊকেটা বলে ভাবেন। এটা তারা অন্যদের আগাছা নামটি দিয়ে জাহির করেন। মরুভূমির ক্যাকটাস হয়ে থাকতেই বোধহয় এরা ভালোবাসেন। ব্যতিক্রমের মতো প্রকাশন সংস্থা , এবং এখন হেমপ্রভাক্যাক্টাসদের ছেড়ে তৃণদেরো অবহেলা করছেনা দেখে ভালোই লাগছে। সুদিন ফিরছে।
                  



উরগেন্দ্র ভট্টাচার্য বরাক উপত্যকার তৃণদের মধ্যে অন্যতম। তাঁকে আমি কলেজ জীবন থেকে চিনি। তিনিও আমাকে।এক সময় কাছাড়ে সি পি আই ( এম এল-লিবারেশন)-এর একমাত্র   সংগঠক ছিলেন। আমরা বহুদিন একসংগে রাজনীতির আড্ডা দিয়েছি। তাঁর রাজনীতি  আমার সবসময়েই সেকেলে মনে হয়েছে। কিন্তু তাই বলে তিনি ভালো লেখক হতে পারবেন না , সেরকম কোনো কথা নেই। ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার তাদের দলের অনেকে আমার ব্যক্তিগত বন্ধু। মাকুমের হরেন্দ্রনাথ বরঠাকুর অসমিয়া ভাষা ও সাহিত্যের একজন খ্যাতনামা লেখক ও সংস্কৃতি কর্মী। আমার সম্পাদিত কাগজ প্রজ্ঞানের তিনি নিয়মিত লেখক। তাঁর বহু চিন্তাকেও আমার সেকেল বামপন্থা বলে মনে হয়। কিন্তু সেটি তার চিন্তাতেই। তাঁর লেখা হয় তথ্য সমৃদ্ধ, সুশৃঙ্খল। উরগেন্দ্র  ভট্টাচার্যের সমস্যা হলো তিনি তাঁর চিন্তাকে সাজিয়ে উপস্থাপন করতে পারেন না। কিন্তু উপদেশটেশ প্রচুর দেন।  কী বলতে চাইছেন, বোঝা মুস্কিল হয়। যুগশঙ্খ সহ শিলচরের দৈনিকগুলোতে তিনি লেখেন । বহুদিন পড়বার চেষ্টা করেছি। যেটুকুন বুঝি তাতে মনে হয় ষাটের দশকের সাংস্কৃতিক চিন্তাতেই তিনি আটকে আছেন। এবং এখনকার প্রজন্ম সেই চিন্তাকে গুরুত্ব দেয় না বলেই তাঁর আক্ষেপ। তাঁর মনে হচ্ছে সবই বোর্জুয়া সাংস্কৃতিক আধিপত্যের দায়। বর্তমান গ্রন্থে তিনি কী লিখেছেন জানিনে। শিলচর থেকে এখানে বই পাওয়াও মুস্কিল। আর কৌতুহল নিবৃত্তির প্রয়োজন দেখা না দিলে তাঁর লেখা পড়বার পূর্বতন অভিজ্ঞতার জন্যেই আনিয়ে পড়বার আগ্রহ হবে না। ৫ অক্টোবর সোমবারের যুগশঙ্খের আটের পৃষ্ঠাতে বেশ বড় করে  উপরে যে সংবাদের কথা লিখেছি সেটি বেরিয়েছে। এতে তাঁর বক্তব্যের উদ্ধৃতি আছে। তিনি সেই উদ্বোধনী সভাতে বলেছেন, সাম্যবাদী সংস্কৃতি সাম্রাজ্যবাদী সংস্কৃতির কাছে মাথা নত করেছে। আর সাম্রাজ্যবাদ ধনবাদেরই বিকশিত রূপ। এর থেকে উত্তরণের একমাত্র পথ হল সমাজবাদী সংস্কৃতি। এই তত্ব ও তথ্যের অনুসন্ধানের প্রয়াস করা হয়েছে বইটিতে। তিনি বুঝি আরো বলেছেন, মানুষের স্বভাবজাত ধর্ম তিনটি। যে তিনটিকে সমস্ত প্রাণী জগতের মৌলিক চাহিদা বলা হয়। এই তিনটি চাহিদা হলো খাদ্য, যৌনতা, আত্মপ্রকাশ বা আধিপত্য প্রতিষ্ঠা। এর উপর ভিত্তি করেই সমস্ত প্রাণীজগতের মস্তিষ্ক কাজ করে একে বলা হয় মস্তিষ্কের উৎপাদন। মস্তিষ্কের উৎপাদনের বাস্তবতাই হল সংস্কৃতি। তবে একবার নয় , বারবার-বহুবার উৎপাদিত উৎপাদনের বাস্তবতাই সংস্কৃতি। 





                     কথাগুলো যে বেশ দুর্বোধ্য এবং অগোছালো হয়ে গেছে পাঠক মাত্রেই ধরতে পারবেন। হতে পারে সাংবাদিকটি তাঁর কথাগুলোকে ধরে উঠতে পারেন নি। কিন্তু একই সাংবাদিক যখন, অনুষ্ঠানে উপস্থিত যুগশঙ্খের নির্বাহী অধিকর্তা নীলোৎপল চৌধুরীর বক্তব্য উদ্ধৃত করে লেখেন, কাগজ কল থাকা সত্বেও এ উপত্যকার বিদগ্ধ লেখকেরা কাগজের বেশি দাম সহ নানাবিধ সমস্যার যে সম্মখীন হন, উল্লেখ করেন এ কথা । ফলে অনুসন্ধানী পাঠকের কাছে পৌঁছাতে পারেন না লেখকেরা। তাই অতি কম খরচে গ্রন্থ প্রকাশনার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে হেমপ্রভা প্রকাশনী। তখন, কই, একটি বর্ণও আমাদের বুঝতে অসুবিধে হয় না।
            আসলে ওই যে লিখলাম উরগেন্দ্র ওই রকম ভাষাতেই কথা বলেন। মানুষের তিনটি মৌলিক চাহিদার কথা সহজ ভাষাতে আমরা যত্র তত্র উল্লেখ করিখাদ্য-বস্ত্র-বাসস্থান। তিনি বুদ্ধিজীবি বলেই একটূ গুলিয়ে দিয়েছেন। বাসস্থানকে তালিকার থেকে একেবারেই বাদ দিয়েছেন । বস্ত্রকেও  তালিকার থেকে বাদ দিয়েছেন বটে, আসলে যৌনতাকে এর মধ্যেই জায়গা করে দেয়া যায়। এগুলো মানুষের শারীরিক চাহিদা। এর মধ্যে আত্মপ্রকাশ বা আধিপত্যের কথা আসেই না। এটি মানুষের মানসিক চাহিদার মধ্যে পড়ে।  কথাটা তিনি বলেছেন প্রায় ঠিকই বটে , কিন্তু আবার আত্মপ্রকাশ ও আধিপত্য শব্দদুটোকে একত্রে লিখে আমাদের ভয় বাড়িয়ে দিয়েছেন। দ্বিতীয়টি আসলে প্রথমটির অনেক রূপের মধ্যে একটি রূপ মাত্র।
                সংস্কৃতি যে মানুষের মানসিক উৎপাদন কথাটা তিনি মোটের উপর ঠিকই বলেছেন। কিন্তু অনেক প্রশ্ন করেই তাঁর কথাটাকে বুঝে নিতে হবে। যেমন খাদ্য আবার মানসিক উৎপাদন হলো কী করে। চাষি যে ধান চাষ করে সেওতো বারাবার হয়ে থাকে , সেও কি সংস্কৃতি ? তাই যদি হবে তার আবার সাম্যবাদী, সাম্রাজ্যবাদী, সমাজবাদী বিভাজন সম্ভব কী করে ?    সাম্যবাদীরা সাম্রাজ্যবাদের কাছে আত্ম সমর্পণ করেছেন বলেই কি এখন সমাজবাদী সংস্কৃতির কাছে আশ্রয় নিতে হবে ? এ দুটো কি আলাদা শিবির। নিশ্চয়ই নয়। উরগেন্দ্র বলবেন। আসলে তাঁর শব্দ চয়ন ঐ রকমই ।  বাংলাতে একটি কথা আছে, চাল টিপলেই হাড়ির খবর মেলে ।  এখান থেকেই বুদ্ধিমানেরা বাকি বইএর খবর পেয়ে যাবেন।
                 সেই উদ্বোধনী সভাতে শিলচরের অনেক বাঘা বাঘা গুণিজন উপস্থিত ছিলেন। বিখ্যাত লেখক গণেশ দে-তো গ্রন্থটি সম্পর্কে বলেই ফেললেন, এই অঞ্চলে বৌদ্ধিক মহলে রচিত স্থায়ী শিলালিপি। উপাচার্য তপোধীর ভট্টাচার্য বলেছেন বইটি, অনেক বড় বইয়ের উপক্রমণিকা। একবিংশ শতকের প্রথম দশকের শেষ প্রান্তে এসে আমাদের চারদিকের রূপান্তরশীল জগতকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেবে এই গ্রন্থটি। আমাদের মনে হয় হেমপ্রভার ডাকেই এঁরা এসছিলেন।  উদ্বোধক হিসেবে উপাচার্যও সময় দিয়েছেন। প্রেস ক্লাবের সভাপতি সনৎ কৈরি সভাতে পৌরহিত্য করেছেন। এবং বলতে হয় বলেই বলেছেন। আমাদের সে নিয়েও কোনো প্রশ্ন বা বিরোধ নেই । আমাদের প্রশ্ন নেই  উরগেন্দ্র ভট্টাচার্যের বই প্রকাশ ও প্রকাশনা সংস্থা বেছে নেবার অধিকার নিয়েও । আমাদের প্রশ্ন     সংস্কৃতি শব্দটার ব্যখ্যা নিয়ে ।  সাংস্কৃতিক আধিপত্য কথাটা র মানে নিয়ে।
              সংস্কৃতি যে কী বস্তু উদ্বোধক নিজেও তাঁর একটা ব্যখ্যা দিয়েছেন, । তিনি বলেছেন, সংস্কৃতি শুধু নাচ-গান বাজনা বা অনুষ্ঠানই নয় । সংস্কৃতির অনুসন্ধান করতে হবে ভাবাদর্শের জায়গা থেকে। পাশাপাশি স্মরণীয়, সংস্কৃতি  প্রসঙ্গে আধিপত্যের কথাটূকু এসে যায় স্বাভাবিক ভাবেই । তবে আধিপত্য সবসময় প্রকাশ্যে আসে না । তাই বিষয়টিকে নতুন করে বোঝার জায়গা রয়েছে। কথাগুলো  আপাত দৃষ্টিতে স্পষ্ট  , গোছালো। এবং সঠিক ।  কিন্তু মানুষ যে কেমন নিজেকে বাঁচিয়ে মন্তব্য করে তাঁর প্রমাণ হলো ঐ ভাবাদর্শ শব্দটি। কাঁচা বাংলাতে লিখলে এটি একটি ভেক  শব্দ। Abstract . ভালো বাংলাতে বিমূর্ত। পাঠক ইচ্ছে মতো অর্থ এতে আরোপ করতে পারেন। কিছু আরোপ না করে কিচ্ছু বুঝিনি বলে বাদ দিয়েও এগুতে পারেন । শ্রী ভট্টাচার্য সামান্য এগুলে শ্রেণি ভাবাদর্শ-টর্শ জাতীয় শব্দ উচ্চারণ করতেন। হয় বামপন্থার বাজার গেছে বলে করেন নি। অথবা করেছেন সাংবাদিকটি  লেখেন নি। এর বেশি দূর তিনি যেতেন না।  বড়জোর সাম্রাজ্যবাদের ষড়যন্ত্রে অসমিয়া ( হিন্দি বললেও বলতে পারতেন)  আধিপত্যের কথা বলতেন । কিন্তু বর্ণ, ধর্ম, ভাষা, অঞ্চল, নৃগোষ্ঠীয় স্বার্থের ভাবাদর্শ থেকে বলে কথাটিকে স্পষ্ট করতেন না মোটেও ।  কারণ বরাক উপত্যকাতে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির আধিপত্যের এঁরাই পুরোহিত। অসম বিশ্ববিদ্যালয় তাঁর নেতৃত্বেই বাঙালির বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত হচ্ছে। বাঙালিদের প্রিয় দিন ক্ষণ উদযাপিত হয় । বাঙালিদের প্রিয় ব্যক্তিত্বের স্মারক তৈরি হচ্ছে তাঁর নেতৃত্বে। শিলচর শহরেও যে তাই হচ্ছে এটা এই সাস্কৃতিক আধিপত্য বিরোধীদের কাউকেই কোনোদিন বিরোধীতা করতে দেখা যায় নি। তপোধির ঠিকই বলেছেন আধিপত্য সবসময় প্রকাশ্যে আসে না এঁরা সব্বাই  দাঙ্গা টাঙ্গার মতো অবস্থা হলে ধর্মীয় সাম্প্রদায়িকতার বিরোধীতা করেন বটে । বাঙালি জাতীয়বাদ এর থেকে রক্ষা পাবার একমাত্র নিদান এও বলেন ,  আর অন্য এক আধিপত্যের পথ প্রশস্ত করেন। কিন্তু রোজকার সাংস্কৃতির অনুশীলনে যে   বাঙ্গালি শব্দটার মানে করে দেয়া হচ্ছে উচ্চবর্ণের হিন্দু সিলেটি বাঙ্গালি এর বিরুদ্ধে কথা বলতে কাউকে শুনিনি কোনো দিন। কাছাড়ি বাঙালি বলে কাছাড়ে যে একটই ঔপভাষিক সম্প্রদায় আছে সে কথাতো এইসব বুদ্ধিজীবিরাই ভুলিয়ে দিয়েছেন। সেই ক্ষোভে সম্প্রতি জগন্নাথ চক্রবর্তী সেই উপভাষা নিয়ে যে এক অভিধান লিখেছেন আর তাতে ভাষাটির নাম দিয়েছেন বরাক বাংলা  
              সেদিনের সভাপতি সনৎ কুমার কৈরি আমার কৈশোর জীবনের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। বয়সে যদিও অনেক বড়। তিনি বাংলাতে লেখেন। ভাষা আন্দোলন নিয়েও তিনিই প্রথম বই লিখেছিলেন। তিনি আসলে হিন্দি ভাষী। পূর্বপুরুষ কোনো একসময় বিহার বা উত্তর প্রদেশ থেকে এসছেন। বাড়িতে তাঁরা হিন্দিতেই কথা বলেন। কিন্তু বাইরে নিজেকে বাঙালি বলেই পরিচয় দেন। কারণ এ নইলে এই শহরে তাঁর প্রতিষ্ঠা জোটবে না। হিন্দি ভাষা ও সাহিত্যের এই উপত্যকাতেও ভাত নেই। দায়ে পড়ে বাঙালি হওয়া। এও কি আধিপত্য নয় ? অসমিয়া আধিপত্যবাদের সঙ্গে আমাদের তবে তফাৎটা কোথায় !  বিজয় ভট্টাচার্যের কবিতার ভাষা ধার করে প্রশ্ন করতে ইচ্ছে হয়, পুড়ে পুড়ে কবে স্বর্ণ হবে আমাদের সন্মিলিত পাপ?  এই কবিও অসমিয়া আধিপত্যের প্রশ্নে আপোসহীন । কিন্তু বাঙালি আধিপত্যের প্রশ্নে কট্টর ! হিন্দু আধিপত্যের প্রশ্নেও তাঁর মুখে অনেক দিন এই অদ্ভূত প্রশ্নও শুনেছি, বরাকের এতো ভাষা শহিদের ভিড়ে  একজনো  মুসলমান নেই কেন ? বোধকরি তাঁর মতো ব্যক্তিদের প্রশ্নকে তুষ্ট করতেই ইমাদ উদ্দিন বুলবুলকে বই লিখে জানাতে হয়েছিল ভাষা আন্দোলনে মুসলমান মধ্যবিত্তের ভূমিকা কী ছিল । আধিপত্যের এক বড় প্রমাণ হলো ১৯৮৬র ভাষা আন্দোলন নিয়ে এঁরা তেমন উচ্চ বাচ্য করেন না। কারণ সেই আন্দোলনে সত্যি সত্যি বহু মুসলমান যুবককে আন্দোলনের সামনের সারিতে দেখা গিয়েছিল । শুধু তাই নয় । সে আন্দোলনে সারা রাজ্যের জনজাতীয় সংগঠনগুলোও সামনের সারিতে এসে পড়েছিল। ইতিহাস লিখতে গেল সে কথাগুলোও লিখতে হবে যে ! মূলত তাদের হুমকিতেই  ১৯৮৬র ১৫ আগষ্ট সেবা সার্কুলার স্থগিত হয়েছিল।


            এ নিয়ে পরে আমার আরো লিখবার ইচ্ছে রইল ।  আপাতত এনিয়ে শুভপ্রসাদ নন্দী মজুমদারের একটা লেখা পাঠক পড়তে পারেন। 


Friday, 2 October 2009

Hindus are making beeline for Madrassa Education in Bengal and Bihar




I had one semi research work on Madrasha Education which got published two years in reputed Bengali Guwahati journal 'Ninth Column' . Where I had shown that Madrashas were only educational institutes where Non-upper caste Hindu's got education throughout the so-called Middle ages of Indian History. Great Hindu Indian Reformer Raja Rammohan Roy also was an Madrasha alumni. Even our own Century old Jamiul Ulum Madrasha of Dibrugarh Had good numbers of Hindu students till the 2nd world war. It's only recent Media Created prejudice that we think Madrasha had nothing to do with education. These are only breading ground of terrorist. Here I'm presenting one news on How Hindu students are Showing new interest in Madrasha education
 Sri  Rajen Barua an US based NRI and Chairman of FASS wrote on Assmnet Yahoo group :

 Dear Sushanta

 This is very eye opening news to many of us.

It is also a news to me that Raja Ram Mohon Roy was educated in Madrassa. I think it is with the coming of the British that Indians started to look at ourselves more as Hindus and Muslims as well as various Hindu castes. They were the perpetuators of stus quo. Today it is the mainly the Hindutva that is creating the anti Islam prejudice. I am very much interested to learn more on the issue and about the education in the Madrassas. Can you forward me the article your wrote on your research on Madrassa education.

 Thanks

 Rajen Barua

Wahid Saleh from Holand wrote:


Dear Rajen,


 You might be interested in the following news clippings informing Hindus students educated in the Madrassas.

   1.. The Brahmo samaj blogpost mentions that
   “Rammohun started his formal education in he village pathshala where he learned Bengali and some Sankrit and Persian. Later he is said to have studied Persian and Arabic in a madrasa in Patna and after that he was sent to Benares (Kashi) for learning the intricacies of Sanskrit and Hindu scripture, including the Vedas and Upanishads.”http://brahmosamaj.blogspot.com/
   2.. Hindus opt for a madrasa education in UP
   http://www.hindustantimes.com/News/india/Hindus-opt-for-a-madrasa-education-in-UP/Article1-376359.aspx
   3.. What role for madrassas that teach Hindus?
   http://news.bbc.co.uk/2/hi/south_asia/4829140.stm
   4.. More Hindus than Muslims in some West Bengal madrassas!
   http://www.hindujagruti.org/news/6207.html
   5.. West Bengal’’s madrassas attracting Hindu students
   http://www.thaindian.com/newsportal/india-news/west-bengals-madrassas-attracting-hindu-students_100149112.html
   6.. Hindu students take to madrassa education
   http://www.sanghparivar.org/blog/rkm/hindu-students-take-to-madrassa-education


 Wahid Saleh

 E-Mail: w.saleh@indiawijzer.nl

 Web: www.indiawijzer.nl

 The Dutch portal with India related information
 Coming together is a beginning | Keeping together is progress | Working together is success

In response I wrote again :


    It was in Madrassas where the Arab renaissance once took shapes and afterwards  it influenced the European to give shape their own renaissance . The First Modern Indian Reformer was actually not Rajarammohan Roy. rather Said Waliullah of Delhi. He was alive in the first part of the eighteenth  century. He first translated Koran in Urdu.He was for widow remarriage. He faught against polygamy.   He fought for the rights of the poor merchants and artisans of Delhi streets. He once organised them and rallied to the emperor   and submitted the memorandum to lessen taxes. According to him Muhhammad didn't came to show the Path of heaven rather he fought for the oppressed poor of then Arab. 
I do support whatever Sri Raren Barua has said ,"I think Indian students should learn Persian and Arabic in school to get a balanced outlook about our culture.
That way Madrassas may be a way out." We know little about the So-called Middle age ( Practically it's and European term, We in Indian have no Middle Age like them ) of India because  we forgot Persi and Arbi. We can not read hundreds of scientifically and philosophically rich texts and scriptures of those years.

 Jonab Wahid Saleh has done gret job by providing some more link about the topic. I hope our friends here will be enriched and  think on Madrassas anotherway. Whenever a Media Report give a call for the closer of this or those Madrass , be sure that they are calling for through away those helpless child who has none to take care in this world. 
Sushanta 


And Now Here is an Memorandum
Maul. Badruddin Ajmal on proposed Central Madrasa Board




No.MBA/EDU/1/2009 Date:  03-10-2009


From: M. Badruddin Ajmal
MP, Dhubri, Assam


To: Shri Kapil Sibal
Hon’ble Union Minister 
Human Resource Development
Government of India
New Delhi-110115
Sir,
I am in recipient of your letter dated Sept. 11, 2009 to attend a discussion on the proposal of a Central Madrasa Board (CMB) by your esteemed ministry. Due to some very important pre-occupations I will personally miss this discussion. Nevertheless, I penned down my views on this crucial issue and I wish my views are considered during the decision making process.   
       
1. The sincerity of HRD ministry and UPA government must not be doubted on the proposal of a Central Madrasa Board (CMB). Of late, the ministry has made it clear that it has no plan to interfere in religious or theological subjects and would just try to incorporate science, mathematic and relevant modern subjects into existing madrasa curriculum. 


To my understanding, the CMB will supervise madrasas at all levels, link up with the open schooling system for teaching in modern subjects and match with standard quality; and would make regulations for affiliation or disaffiliation of a particular madrasa in to the proposed board. The proposal is wise and sounds beneficial for Muslims children but it has genuine oppositions form people directly or indirectly volunteering madrasa education system for last 150 years in India. And without positive consideration of their views a CMB or any government aided programme for madrasas cannot reach to the real beneficiaries.   


2. It is the history of madrasas that they have always been independent, even under Muslim rulers. According to a research conducted by Markazul Ma’arif Education & Research Centre (MMERC), Mumbai in 2003 which was later published in two separate books ‘Madrasa Education its Strength and Weaknesses’ and ‘Madrasa Education Frameworks’ (2006) right from their inception in medieval period, all big and small Madrasas have enjoyed full autonomy in all aspects of their functioning. They have been independent in framing their own curricula, using their own modes of teaching and training their students internally in their own ways. Even in the Mughal period in India when many of them received grants and endowments from the rulers and nobles they were never brought under the control of a common regulating or examining body. Therefore, it is understandable that even today ulama of India will not accept any aid from the government, whatsoever, to run madrasas and will continue in their traditional style. They will not offer even proper hearing to the idea of direct government involvement in their functioning. 


3. The much discussed Justice Rajinder Sachar Committee rightly reveals in its report that out of total school going Muslim Children only 4% join madrasas in the primary level which includes those attending government aided madrasas too. With high drop out in madrasas and with the deduction of children attending government aided madrasas where state prescribed curriculum is followed the actual ratio of Muslim children attending non-aided madrasas in our country stands around 1.5 percent only as revealed by surveys conducted by Muslim NGOs. Moreover, the very recent HRD ministry-sponsored survey by IMRB’s Social and Rural Research Institute puts the number of out of school children at 81 lakh or 4.22% of children in the age group of 6 to 13 years nation wide.


Despite reductions, the percentage of out of school children among the Muslims (7.67%), Scheduled Castes (5.96%) and Scheduled Tribes (5.6%) continues to be much higher than the national average of 4.22%. The gap between the percentage of out of school children among SCs and Sts and the national average has been substantially reduced – in 2005, when the national average was 6.94%, the percentage of out of school children among Scheduled Castes was at 8.17%, while among Scheduled Tribes it was 9.54%. 


While there has been a reduction in the percentage of out of school children among Muslims, the gap between the national average of out of school children and that among Muslim has risen marginally. It was at 9.97% among Muslims in 2005, when the national average was 6.94%. While in 2009, the gap is marginally higher by 0.42% — among Muslims, out of school children account for 7.67%, when the national average is nearly halfway below at 4.22%.


Now it is up to us – the law and policy makers of this nation to choose our priority wisely. Should we go first for a quality-check of 1.5% children who are by all means under a system of education and will fulfill the criteria of being lettered or to rush to manage even minimum standard of schooling for 7.67 % Muslim children who are still out of school and will remain unlettered without proper government aided planning and its implementation? I think to attend the later is wiser and more urgent.          


4. It is notable that all leading non-governmental madrasas like – Darul Uloom Deoband and Nadwatul Ulama Lucknow, religious organizations like – Jamait Ulama-I Hind and All India Ulama Council and a majority of Muslim religious leaders have already rejected the proposed CMB before this fresh move by your esteemed ministry.


The Muslim community leaders have rejected the proposal as they fear this will allow unnecessary government interference in the madrasa system. Moreover, we do have government aided madrasa boards in at least 10 states of our country where madrasas are affiliated and aided by the state governments. At present the conditions of these government aided madrasas – education, infrastructure and staff salary – are far worse than those non-aided madrasas. Especially the theological aspects of these govt.-aided madrasas are very apathetic. In addition to this I am frequent to face arguments during intra-community meetings such as ‘If the government is really concerned about the educational welfare of the Muslims, then it should give proportionate reservation to Muslim students in all central universities’. Some even put straight questions like “Why is the government not setting up schools, colleges, medical colleges and ITIs in the Muslim dominated areas if it is really open for the educational development of the Muslim in the country?" There can be counter arguments too but to me it is still not the time for a Central Madrasa Board for non-aided non-governmental (quami) madarasas in our country.


5. As I mentioned under No. 1 above that the proposal of the CMB is wise and I believe it will be applicable with certain prerequisites measures taken by the HRD ministry. I have a detail plan for modernization of madrasa curriculum and we have been successfully imparting modern education to madrasa graduates since 1994 which has been largely accepted by both Muslim intellectuals and religious leaders and proven beneficial for the madrasa students. Some of our students are already Ph.D holders others have passed NET competitive exams and appeared in UPSC exams besides, many of them are working as good journalists, English writers and good administrators in India and aboard. Scholars from Markazul Ma’arif Education and Research Centre (MMERC), Mumbai can be requested with your consent to give a presentation for HRD ministry on its on going project on ‘madrasa modernization’ which got considerable coverage in the mainstream media too. However the pre-requisite measures, to my understanding, to be taken by the HRD ministry for non-governmental Central Madrasa Board (CMB) are as follow: 


a. The HRD ministry should pay urgent attention towards the out of school Muslim children before everything else. I strongly believe that if the present UPA government can manage to bring the percentage of out of school Muslim children down from 7.67% to even 4 % in this five year tenure, it will be a delighted gift for both the community and the nation. Our first target should to be to come out of the darkness of illiteracy and then gradually we can improve quality of education too. 


b. HRD ministry should first resolve to make the proposed CMB for government aided madrasas for a targeted time period, bring them under one umbrella as in Central Board of Secondary Education (CBSE) and facilitate equally standard education for madrasas in all states to set an example against government aided madrasas’ negative reputation. It will surely encourage students and their parents to enroll in government aided madrasas if not non-aided madrasa management, to say the least.


c. There are thousands of primary and pre-primary schools run by Muslims NGOs or local bodies of masjids across the country and most of them are following syllabus proscribed by the state governments in addition to maktab (elementary Islamic) education. These schools be adopted first by the state government under the SSA or by the central government under the UEE and then manage standard primary education through government aid. It will avail a solid educational foundation for all Muslim children and will make an opportune to the next general secondary standard madrasa students to pursue their advanced education either with government aided institutes or with non-government aided ones – madrasas. Generally they will prefer the former owing to the future prospects of their carrier.


d. As stated above that according to Muslim NGOs only 1.5% Muslim children are completing madrasa education nationwide and ulama argue that this small number is even not enough to fulfill the religious need of the community alone. I think government should effectively plan for 98.5% Muslim children and rest will be automatically updated to match with the community demands.        


e. The government should avoid direct involvement in the functioning of independence madrasas by all means until a successful and transparent experiment has been done with aided madrasa board. On the other hand an NGO – Government partnership project aiming at the targets set by the proposed CMB can be initiated without further delay. These partner NGOs will work as bridge between madrasas and government and will amicably be able to implement mutually accepted and desired changes or development in both curriculum and methodology of madrasa education system. Which will gradually be taken by the Central Madrasa Board and the NGOs will be replaced by the CMB members in later stage.  


With best regards 




Yours truly,






(M. Badruddin Ajmal)                            
citation 




Mukul Mahata Wrote again on Assamnet
From: mc mahant
To: assam assamnet
Date: Sun, 4 Oct 2009 18:23:41 +0530
Subject: Re: [Assam]assamDigest, Vol 51, Issue 7




 Sushanta  wrote:


> If Madrassas can produce enlightening leaders like Raja Ram Mohon Roywhom
> India call Father of Modern India, thatis great.
> I think Indian students should learnPersian and Arabic in school to get a
> balanced outlook about our culture.
> That way Madrassas may be a way out.
---
--- 
In 1944-'50   I was a lucky student of Namti High School- tillsomebody burnt the school down in mid- 1950 .The revolutionary legacy of KhagenBarbarua- -our great teacher could not be tolerated by Jawaharlal's goonsworking on direct orders from John Fostr Dulles.Our respected Abdur RowfSir  was a versatile and prolific teacher.Hetaught not only  Farsi and Arabic( bothso different ) to  our Gowria brothers/sisters  but Geography and English History regularly.Andwhen some teacher was on sick leave he took that class--any subject-- and told us short stories  from Koran-or Bible- or Gita and made us tellit back  to the class.
I do not recall( I wasfar away) how /when  there was the totalseparation to  Higher Secondary  & Madrassa. In Namti Chariali we knewthere was a low key Madrassa  attached tothe local mosque. Language-Culture-Humanism  these should be together  and leftto  guided choice.I learnt a smatteringof Sanskrit--.  I remembered some " Cockand Bull" stories from Panchatantra. I do not remember somebody/anybodyasking me Which?-- Farsi OR  Sanskrit--  should I learn  throughout.Now we hear Dilli issuing a firman'Compulsory Hindi   till end of HighSchool'. Why not Russian -Mandarin-?
mm
I Responded:




Dear
Mukulda,
Most of your generationhad such marvelous experiences in schools and society as a whole.We're deprived of such a harmonious society.  Since wehave inherited  Madrassa and tool systems of education fromour feudal past there is no question of separation ofHigher secondary and Madrassa education at all. Rather we have onenewly constructed Madrassa Edcucation Board in Assam, which actuallyget controlled  by SEBA and AHSEC . 


I rgreat that I can notforward my write up here. But, I can forward two links herelike yesterdays one :


Sushanta Kar


And Mukulda Daid Again:


mikemahant@hotmail.com:
sender time Sent at 21:21 (GMT+05:30). Current time there: 21:24. ✆
to pragyan.tsc50@gmail.com
date 5 October 2009 21:21
subject RE: Hindu Students are making beeline for Madrassaa
mailed-by hotmail.com
hide details 21:21 (4 minutes ago)

 Dear Sushanta,

    You are the right material to lead a pack OF INTELLECTUALS  to remould Educational reforms in Oxom.


Swajatyer Ahomikar Theke Mukti Daner Sikshai Ajker Diner Pradhan Siksha: Rabindranath





Look after your humanistic self.

Assam has lots of PEOPLE but few MEN .

Assam will need you soon.

Mukulda



I repleid:

Oh ! No Mukulda ! 
You have Said  much about me. Just bless that I can stay here where I'm today. 
I hope here we have many of such man. Who are maintaining a low key for the time being. I'm proud that I've get such elders like you here, who are constantly helping me to enrich my own self. At least Here I don't feel lonely. 


Sushanta 

















Google+ Badge